গর্ভাবস্থা এমন একটি সময় যখন মা মানসিকভাবে খুব নাজুক থাকেন। মা তখন চান মনের সদা পরিবর্তনশীল অনুভূতিগুলো নিয়ে কারো সাথে কথা বলতে। কিন্তু হয়ত অনেক সময়ই কাউকে তা বুঝিয়ে বলা হয় না বা বলা যায় না। মা হয়ত চান এমন কারো সাথে কথা বলতে যার কাছে তার ভালোলাগা, কষ্টগুলো, অনাগত সন্তানকে নিয়ে অবিরাম আশা ও ভয় দ্বিধাহীনভাবে বলা যায়। সে হয়ত শুধু শুনবেই না, অন্তরে শান্তির প্রলেপও দিবে। তাই অজান্তেই হয়ত মায়ের মন দু’আ করে ওঠে, স্রষ্টার কাছে মনের শংকাগুলো খুলে বলে, নিরাপত্তার জন্য আকুল আবেদন জানায়। কুরআনেও কী আছে এমন কোন দু’আ করার ঘটনা যেখানে দু’আপ্রার্থী দুর্বল অবস্থায় মনের আশঙ্কা স্রষ্টার কাছে খুলে বলেছিলেন? তার থেকে রহমত ও নিরাপত্তা কামনা করে শেষ পর্যন্ত অভাবনীয় উপায়ে তা পেয়েছিলেন? কেমন ছিল সেই দু’আ? আসুন গর্ভকালীন সময়ে তা জেনে নিয়ে স্রষ্টার সাথে সঠিক আদব বজায় রেখে কথোপকথন শুরু করি যার শেষে পাওয়া যাবে কবুল দু’আর স্বাদ বিইযনিল্লাহ।     

  

দু’আঃ স্রষ্টার সাথে কথোপকথন

রহমতের সূরা

পবিত্র কুরআনে সূরা মারইয়ামের শুরুতে কিছু তাৎপর্যময় আয়াত আছে। সূরা মারইয়ামকে রহমতের সূরাও বলা হয়।

আয়াত ১: কাফ্‌, হা, ইয়া, আঈন, সাদ্‌

আর্টিকেল নিয়ে আপনার প্রশ্ন, অভিজ্ঞতা বা ফীডব্যাক শেয়ার করতে পাবলিক টেলিগ্রাম গ্রুপে যোগ দিন
মাতৃত্বের বিভিন্ন নোটিফিকেশন পেতে হোয়াটসএপ গ্রুপে যোগ দিন। এই গ্রুপে শুধুমাত্র এডমিন মেসেজ পাঠান।

আয়াত ২: এটা তোমার প্রতিপালকের অনুগ্রহের বিবরণ তাঁর বান্দা যাকারিয়ার (আঃ) প্রতি।

আয়াত ৩: যখন তিনি তাঁর প্রতিপালককে আহ্বান করেছিলেন নিভৃতে।

এখানে, প্রথমেই আমরা দেখছি যে যাকারিয়া(আঃ) আল্লাহর কাছে দু’আ করছেন। আল্লাহর একজন নবী তাঁর কাছে এমন কিছুর জন্য দু’আ করছেন যা পাওয়ার জন্য তিনি মরিয়া হয়ে আছেন। এমন কিছু যা উনার ভীষণ প্রয়োজন। আর তাই তিনি এমনভাবে দু’আ করতে চেষ্টা করছেন যেন তাঁর দু’আ কোনভাবেই প্রত্যাখ্যাত না হয়।

দু’আ করার আদবের মাঝে সর্বপ্রথম আমরা যা দেখতে পাই তা হচ্ছেঃ না-দা রাব্বাহু নিদা-য়ান খাফিয়্যান এই কথাটা এখানে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে বলা হয়েছে। যাকারিয়া(আঃ) তার রবকে ডাকছেন প্রগাঢ়ভাবে। আবেগআপ্লূত হয়ে। এবং নিভৃতে। তিনি দু’আ করার জন্য এক একান্ত সময় ও পরিবেশ বেছে নিয়েছেন যা শুধু তার এবং তার রবের জন্য। সেই বিশেষ মূহুর্তে তিনি আল্লাহ তা’য়ালার কাছে কেঁদে উঠে মিনতি করছেন। কিন্তু তিনি তার দু’আয় ঠিক কী বলেছেন? ঠিক কিভাবে তিনি দু’আ করেছেন?

আয়াত ৪: তিনি বলেছিলেন, “হে আমার প্রতিপালক! আমার অস্থি দুর্বল (তিনি মহান আল্লাহর সামনে তার দূর্বলতা ও অপারগতাকে তুলে ধরছেন। যখন আপনি আল্লাহর সাথে কথা বলছেন তখন আপনি উচ্চতর কারও সাথে কথা বলছেন। তিনি এমন একসত্ত্বা যিনি সর্বোচ্চ, সর্বোত্তম। তাই আল্লাহর এক নবী ও রাসূলের কাছ থেকে আমরা শিখছি যে এই মহান সত্ত্বার সামনে নিজের দুর্বলতা, হতাশা ও প্রয়োজনকে তুলে ধরতে হয়।এবং তাঁর সামনে নিজেকে বিনম্র করে তুলতে হয়।)(বয়স ভারাবনত) হয়েছে, বার্ধক্যে আমার মস্তক শুভ্রোজ্জল হয়েছে (অর্থ্যাৎ, “আমি বার্ধক্যে উপনীত হয়েছি।”  তাই আমি খুব দূর্বল ও ভঙ্গুর হয়ে পড়েছি। দু’আ করার সময় নিজের দূর্বলতাকে তুলে ধরা এক অপূর্ব বিষয়।)হে আমার প্রতিপালক! আপনাকে আহ্বান করে আমি কখনও ব্যর্থ হইনি। (অর্থ্যাৎ, আপনি কখনোই আমাকে ফিরিয়ে দেননি। আমি আপনার কাছে দু’আ করে কখনোই শূণ্য হাতে ফিরে যাইনি। হে আল্লাহ, আমি আজও খুবই আশাবাদী যে আপনার কাছে আমার এই দু’আ আপনি কবুল করবেন। এবং আপনি আমার হিফাযত করবেন।)

এবং এরপর তিনি বলছেন ‘কেন’ তিনি এই দু’আ করছেন।

আয়াত ৫: আমি ভয় করি আমার পর উত্তরাধিকারীত্বের, আমার স্ত্রী বন্ধ্যা, সুতরাং আপনি আপনার নিকট হতে আমাকে দান করুন উত্তরাধিকারী।

এর অর্থ হচ্ছেঃ আমার পর আমি যাদের রেখে যাচ্ছি তাদের উপর আমার আস্থা নেই। অন্য দিকে আমার স্ত্রী সন্তান ধারণে সক্ষম না। কিন্তু এই সমস্ত প্রতিকূলতা সত্ত্বেও আমি আপনার সামনে হাজির হয়েছি, ও আল্লাহ আমি আপনার কাছে মিনতি করছি। ও আল্লাহ আপনার মহানুভবতা থেকে, আপনার দয়া থেকে আমাকে এক পুত্রসন্তান দিন, এক সাহায্যকারী দিন। এমন একজনকে দিন যে আমার লক্ষ্য অর্জনে আমাকে সাহায্য করতে পারবে।

এবং তিনি এটা উপহার হিসাবে চাইছেন। মানে, আমি এই জিনিস পাওয়ার যোগ্য না, কোনভাবেই আমি এটা চাইতে পারি না। কিন্তু আমি এই জিনিস আপনার কাছে ভিক্ষা চাইছি। তিনি প্রথমেই নিজের দূর্বলতার কথা বলে নিয়েছেন। তিনি বলেছেন তার কত বয়স হয়েছে, কত মরিয়া তিনি এটা পাওয়ার জন্য এবং আল্লাহর কাছ থেকে কতখানি আশা উনার! তিনি বলেছেন যে পরিস্থিতি সম্পূর্ণই তার প্রতিকূলে রয়েছে। তারপরও তিনি আল্লাহর কাছে একটি সন্তান ভিক্ষা চেয়েছেন।

কেমন সন্তান চেয়েছেন তিনি?

আয়াত ৬: যে আমার উত্তরাধিকারিত্ব করবে এবং উত্তরাধিকারিত্ব করবে ইয়াকুবের (আঃ) বংশের এবং হে আমার প্রতিপালক! তাকে করুন সন্তোষভাজন।

এর অর্থ হচ্ছে, সে যেন হয় আল্লাহর একজন নবী ও রাসূল এবং তার পরিবার ও গোত্রের নেতা। সে হোক এমন একজন যার উপর আল্লাহ পুরোপুরি সন্তুষ্ট।

আয়াত ৭: হে যাকারিয়া(আঃ)! আমি তোমাকে এক পুত্রের সুসংবাদ দিচ্ছি। তার নাম হবে ইয়াহইয়া(আঃ); এই নামে আমি পূর্বে কারও নামকরণ করি নাই।

আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতা’য়ালা তার দু’আ কবুল করেছেন।

আয়াত ৯: তিনি বললেন,এই ভাবেই হবে; তোমার প্রতিপালক বলেনঃ এটা আমার জন্যে সহজ; আমি তো পূর্বে তোমাকে সৃষ্টি করেছি যখন তুমি কিছুই ছিলে না।

এর অর্থ হচ্ছে, যাকারিয়া আমি খুব সহজেই তোমার দু’আ কবুল করতে পারি। তুমি যা চাইছ আমি তোমাকে তা দিতে পারি। বরং তার চেয়েও বেশি দিতে পারি। তোমার তো অস্তিত্বই ছিলনা। আমি তোমাকে অনস্তিত্ব থেকে অস্তিত্ব দান করেছি। তাহলে একজন স্বামী ও একজন স্ত্রীকে সন্তান দান করা আমার জন্য কঠিন হবে কেন? হ্যাঁ, যাকারিয়া(আঃ) ও তার স্ত্রীর অনেক বয়স হয়েছিল এবং তারা সন্তান ধারণে অক্ষম ছিল। কিন্তু আল্লাহ বলছেন, যেখানে একজন বাবা ও মা উপস্থিত আছে সেখানে মানুষ সৃষ্টি করা শূণ্য থেকে কিছু সৃষ্টি করার চেয়ে সহজ। আর তিনি তো ইতিমধ্যেই শূণ্য থেকে মানুষ সৃষ্টি করেছেন।

একনজরে যাকারিয়া(আঃ)-এর দু’আ

যাকারিয়া(আঃ)-এর দু’আর মাধ্যমে আমরা একনজরে জানতে পারি কিভাবে দু’আ করতে হয়, কেন আমরা দু’আ করি, দু’আ করার সময় কোন কোন জিনিস মনে রাখা উচিত, এবং সঠিকভাবে দু’আ করলে কী ফল পাওয়া যায়।

আমরা দেখি যে আল্লাহর সামনে যাকারিয়া(আঃ) নিজেকে বিনম্র করে তুলেছেন। তিনি খুবই আশাবাদী যে তার দু’আ কবুল হবে। তিনি আল্লাহর প্রশংসা করে তার প্রতি আল্লাহর নিয়ামতসমূহ উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন কেন তিনি দু’আ করছেন। মানে তিনি তার দু’আকে কথোপকথনে রূপ দিয়েছেন। প্রায় সময়ই আমাদের দু’আ খুব আনুষ্ঠানিক হয়ে যায়। আমরা দু’আ করার সময় আল্লাহর সাথে কথা বলি না।

যাকারিয়া(আঃ) তার দু’আকে এক আবেগঘন কথোপকথনে পরিণত করেছেন। তিনি যখন এভাবে তার প্রয়োজনকে আল্লাহর সামনে তুলে ধরেন তখন আল্লাহ তার ডাকে সাড়া দেন। আল্লাহ তৎক্ষণাৎ তার দু’আ কবুল করে নিয়ে তাকে পুত্রসন্তান দান করেন।  

আমরা জানি যে আল্লাহ তাকে একজন নবী বানিয়েছিলেন। তিনি সৎকর্মশীল ও বিনয়ী ছিলেন। আল্লাহ তাকে পুত্রসন্তান দান করেছিলেন। পরবর্তীতে সূরা মারইয়ামে আল্লাহ আমাদের জানান যে তিনি ছিলেন খুবই যত্নশীল একজন মানুষ। তিনি তার পিতা-মাতার যত্ন নিতেন। তিনি কর্কশ ছিলেন না। তার অন্তঃকরণ পবিত্র ছিল। তিনি সাদাকা দিতেন ও দরিদ্রদের খেয়াল রাখতেন। তিনি সর্বসময় আল্লাহকে স্মরণ করতেন। আল্লাহর সাথে তার খুব দৃঢ় সম্পর্ক ছিল।

কুরআনে উল্লেখিত যাকারিয়া(আঃ)-এর জীবন থেকে আমাদের জন্য এটা এক উত্তম দৃষ্টান্ত, এক নিয়ামত যার মাধ্যমে আল্লাহ আমাদের জানাচ্ছেন কিভাবে তাঁর এক নবী তাঁর কাছে দু’আ করেছে। এই ঘটনা কুরআনে উল্লেখিত অলৌকিক ঘটনাসমূহের মাঝে একটা। কিছু তাফসীরের বইতে উল্লেখ করা হয়েছে যে আল্লাহ যখন তাকে সন্তান দান করেন তখন তার বয়স ছিল ৭০, ৮০, এমনকি ১০০ এর বেশি। কিন্তু এমন অবস্থাতেও আল্লাহ তার দু’আ কবুল করেছেন। এটা আমাদের উপলব্ধি করায় কিভাবে ও কেন আমাদের দু’আ করতে হবে এবং আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালার কাছে দু’আ করার সময় আমাদের কী কী বিষয় মনে রাখতে হবে।

দু’আ কি?   

আল্লাহ আমাদের আদেশ করেছেন তাঁর কাছে দু’আ করতে। আল্লাহর রাসূল(সাঃ)-এর এক হাদীস থেকে আমরা জানতে পারি যে যখন কোন বান্দা আল্লাহর কাছে দু’আ করে না তখন তিনি তার উপর নারাজ হন। আল্লাহ সেই বান্দার উপর সন্তুষ্ট থাকেন যে তাঁর কাছে ক্রমাগত দু’আ করে যায়। দু’আ করার মাধ্যমে আল্লাহর আদেশ পালন করা হয়, রাসূল(সাঃ)-এর সুন্নাহ পালন করা হয়,বিশ্বাসীদের অনুসরণ করা হয় এবং আল্লাহর প্রতি আমাদের ঈমানের সবচেয়ে বড় বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

রাসূল(সাঃ)বলেছেন, “দু’আ হচ্ছে ইবাদত।”

মূলত, দু’আ হচ্ছে ইবাদতের প্রাণ। আল্লাহর প্রতি দাসত্বের নিদর্শন।

সূরা গাফীরের ৬০ নম্বর আয়াতে আল্লাহ বলেছেন, “তোমাদের প্রতিপালক বলেনঃ তোমরা আমাকে ডাক, আমি তোমাদের ডাকে সাড়া দিব।”

সূরা বাকারার  ১৮৬ নম্বর আয়াতটি খুবই শক্তিশালী একটি আয়াত যেখানে আল্লাহ দু’আ নিয়ে বলেছেন, “এবং যখন আমার বান্দাগণ আমার সম্বন্ধে তোমাকে জিজ্ঞাসা করে, তখন তাদেরকে বলে দাওঃ নিশ্চয়ই আমি সন্নিকটবর্তী; কোন আহ্বানকারী যখনই আমাকে আহ্বান করে তখনই আমি তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে থাকি; সুতরাং তারাও যেন আমার ডাকে সাড়া দেয় এবং আমাকে বিশ্বাস করে, তা হলেই তারা সঠিক পথে চলতে পারবে।”

এখান থেকে আমরা বুঝতে পারি যে আমাদের দু’আ কবুলের শর্তে কোন ‘যদি’ নেই বরং প্রশ্নটা এখানে ‘যখন’। আমরা এই মানসিকতা নিয়ে দু’আ করব না যে ‘যদি আমার দু’আ কবুল হয়’ বরং আমরা ভাববো যে ‘যখন আমাদের দু’আ কবুল হবে’। মহান আল্লাহ কুরআনে নিশ্চয়তা দিয়েছেন যে তিনি আমাদের দু’আর উত্তর দিবেন। আমাদের দু’আর উত্তর দেয়ার জন্য তিনি সবসময় উপস্থিত আছেন। শুধু দু’আ করার দায়িত্বটা আমাদের। আমরাই দেরি করছি দু’আ করতে। আল্লাহ এখানে ‘আহ্বান করা’ ব্যবহার করে বোঝাচ্ছেন যে দু’আ করার কাজটা সম্পূর্ণই আমাদের। তিনি সবসময় অপেক্ষা করছেন আমাদের দু’আর উত্তর দেয়ার জন্য, আমাদের খেয়াল রাখার জন্য।

অন্য এক জায়গায় আল্লাহ আমাদের বলেন, “কে নিপীড়িতের আহ্বানে সাড়া দেয় যখন সে আল্লাহকে ডাকে, এবং তিনি মু’মীনের যে কোন ক্ষতি বা অসুবিধা দূর করেন।” নিশ্চয়ই তিনি আল্লাহ।

এই শক্তিশালী কথাটি মনে রাখার মতো, “যখন কোন ক্ষতি, সমস্যা বা প্রতিকূলতা তোমাকে স্পর্শ করে,আল্লাহ ছাড়া কেউ তখন সেটা তোমার কাছ থেকে দূর করতে পারবে না।”

দু’আ হচ্ছে আল্লাহকে আহ্বান করা।

কিভাবে দু’আ করতে হয়?

এখন চলুন আমরা দেখি কিভাবে দু’আ করলে আল্লাহ আমাদের দু’আ কবুল করবেন।

১) আন্তরিকতা – আন্তরিকতার সাথে আল্লাহকে ডাকতে হবে। কুরআনে আল্লাহ বলেছেন, “বিনয়ের সাথে আল্লাহকে ডাক, নম্রতার সাথে নীরবে নিভৃতে তাঁর কাছে দু’আ কর।”

২) হারাম জিনিসের জন্য দু’আ করা থেকে বিরত থাকতে হবে ও আল্লাহর সাথে অসঙ্গতভাবে কথা বলা যাবে না – অর্থ্যাৎ, দু’আ করার সময় যে কোন ধরণের অসঙ্গত আচরণ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। ইমাম মুসলিমের সহীহ হাদীসে আছে যে আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে রাসূল (সাঃ) বলেছেন, “আল্লাহ ততক্ষণ পর্যন্ত বান্দার দু’আ শুনেন ও কবুল করেন যতক্ষণ পর্যন্ত সে…

–     কোন পাপ করার জন্য দু’আ করবে না। মানে সে আল্লাহকে কোন পাপ করার পথ সহজ করে দেয়ার জন্য বলবে না। এখন আমাদের মনে হতে পারে, “আমরা  কেন এমনটা করব?” আমাদের বোঝা দরকার যে যখন আমরা আল্লাহর কাছে এমন কিছু চাইছি যা পাওয়ার জন্য অসৎ উপায় অবলম্বন করতে হবে তখন সেটাও হারামের পর্যায়ে পড়ে।

–     বান্দা তার দু’আয় এমন কিছু চাইবে না যার ফলে আত্মীয়তার বন্ধন ছিন্ন হয়।

–     যতক্ষণ পর্যন্ত বান্দা দু’আর ব্যপারে তাড়াহুড়া না করে। রাসূল(সাঃ)-কে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, “কিভাবে একজন মানুষ দু’আর ব্যপারে তাড়াহুড়া করে?”  তিনি(সাঃ)বলেছিলেন, “সে বলে ‘আমি আল্লাহকে অনেক ডেকেছি, অনেক দু’আ করেছি, কিন্তু কিছুই হয়নি। আমার মনে হয় আল্লাহ আমার দু’আ কবুল করবেন না।’” রাসূল(সাঃ) বলেন, “তারপর সে নিরাশ হয়ে পড়তে শুরু করে ও দু’আ করা বন্ধ করে দেয়।”  কিন্তু দু’আ করার পর বান্দার উচিত আল্লাহর রহমতের জন্য আশা করা। অন্তরে বিশ্বাস করা যে আল্লাহ তার ডাক শুনেছেন ও তিনি তার খেয়াল রাখবেন।

যখন আমরা তাড়াহুড়া করি তখন আমরা আসলে আল্লাহকে অসম্মান করে বসি। সেই সাথে আমাদের মানসিক দৃঢ়তায়ও নেতীবাচক প্রভাব পড়ে। ফলে কিছু সময় পর আমরা নিরাশ হয়ে দু’আ করা বন্ধ করে দেই।

৩) দৃঢ় বিশ্বাস থাকা – সমস্ত হৃদয় দিয়ে, সমস্ত সত্ত্বা দিয়ে বিন্দুমাত্র সন্দেহ না করে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করা যে আল্লাহ তা’য়ালা আপনার খেয়াল রাখবেন। তিনি আপনার দু’আ কবুল করবেন। দু’আ করার সময় এটা মনে রাখা খুবই জরুরী।

ইমাম আত-তিরমিযির জামি’তে উল্লেখিত রাসূল(সাঃ)-এর একটি হাদীস আছে যা আবু হুরায়রা(রাঃ) থেকেও বর্ণিত। আল্লাহর রাসূল(সাঃ) বলেছেন, “এমন মুহূর্তে আল্লাহর কাছে দু’আ কর যখন তোমার মনে এই বিশ্বাস কাজ করছে যে আল্লাহ তোমার দু’আ কবুল করবেন। এবং ভালো করে জেনে রাখ যে আল্লাহ সেই বান্দার দু’আ কবুল করেন না যার অন্তর আল্লাহর কাছ থেকে বিছিন্ন, তাঁর থেকে গাফেল…”

যার অন্তর আল্লাহর কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন আল্লাহ তার দু’আ কবুল করেন না। দু’আ আসে অন্তর থেকে। আমরা যত সুন্দর শব্দমালা ব্যবহার করেই দু’আ করি না কেন, দু’আটা যদি আসে অন্তরের অন্ধকার জায়গা থেকে যার আল্লাহর সাথে কোন সম্পর্ক নেই, যা তাঁর রহমতের আশা করে না, তাহলে আল্লাহ তার দু’আ কবুল করেন না। অন্য দিকে, আমরা হয়ত ভাঙ্গা ভাঙ্গা শব্দে আল্লাহকে ডাকছি, আমরা হয়ত তোতলাচ্ছি, আমরা হয়ত জানিই না ঠিক কী বলতে হবে কিন্তু যদি সেই দু’আটা এমন এক আলোকিত অন্তর থেকে আসে যা আল্লাহর রহমতের ব্যপারে আশাবাদী, তাহলে জেনে রাখুন যে সেটা এমন এক দু’আ যা আল্লাহ কবুল করবেন।

এখন প্রশ্ন আসতে পারে যে কিভাবে আমি জানব যে আমার দু’আ আল্লাহ কবুল করেছেন?

এই প্রসঙ্গে আবু সাইদ আল খুদরি(রাঃ)-এর একটি হাদীস আছে। হাদিসটি ইমাম আহমাদ উল্লেখ করেছেন। রাসূল(সাঃ) বলেছেন,“যখন কোন ব্যক্তি এমন কোন দু’আ করে যা তাকে পাপ করতে সহায়তা করবে না এবং পারিবারিক বন্ধনকে ছিন্ন করবে না, তখন আল্লাহ তার দু’আর উত্তর নিচে বর্ণিত কোন এক ভাবে দিয়ে থাকেন…

১) আল্লাহ তা’য়ালা তার দু’আ কবুল করে নিবেন। সে যে জিনিসের জন্য দু’আ করেছিল তিনি তাকে তাই দিবেন।

২) আল্লাহ তার এই দু’আ আখিরাতের জন্য সঞ্চয় করে রাখবেন। মানে, দুনিয়াতে এটা তার জন্য ভালো ছিল না তাই আল্লাহ আখিরাতে এটা তার জন্য রেখে দিবেন।

বিচার দিবসে যখন একজন মানুষ দেখবে তার দুনিয়ায় করা দু’আগুলোর বিনিময়ে আল্লাহ তাকে কী দিয়েছেন তখন তার মনে হবে, যদি দুনিয়ায় তার কোন দু’আই কবুল না হতো! যদি তার সব দু’আ আখিরাতে পুরষ্কার পাওয়ার জন্য রয়ে যেত! এটি আল্লাহর এক অসীম নিয়ামত।

অথবা,

৩) তার দু’আর বিনিময়ে আল্লাহ তার থেকে কোন ক্ষতিকে সরিয়ে নিবেন।

সাহাবীরা যখন এই হাদীস শুনেছিলেন তখন তারা আপ্লূত হয়ে বলেছিলেন, হে আল্লাহর রাসূল(সাঃ) আমরা তাহলে অধিক পরিমাণে দু’আ করতে শুরু করব। রাসূল(সাঃ) বলেছিলেন, “তোমরা যত বেশি পরিমাণে দু’আই কর না কেন, আল্লাহর দু’আ কবুলের ক্ষমতা তোমাদের দু’আ করার ক্ষমতার চাইতেও অনেক বেশি।” মানে, আল্লাহর দু’আ কবুলের ক্ষমতা তোমাদের সকলের সর্বোচ্চ দু’আর চেয়েও অনেক বেশি। তাঁর কাছে চান এবং জেনে রাখুন যে তিনি আপনার খেয়াল রাখবেন ও উপরের যে কোন এক ভাবে তিনি আপনার দু’আর উত্তর দিয়ে যাবেন। এটাই আল্লাহর দয়া ও মহানুভবতা।

আমাদের কোন দু’আই উপেক্ষিত হয় না। আল্লাহ বিশ্বাসী বান্দার সকল দু’আর উত্তর দেন। আমাদের শুধু এটা বুঝতে হবে যে আমাদের জন্য যা ভালো আল্লাহ তাই করেন কারণ তিনিই জানেন আমাদের জন্য কী ভালো।

আল্লাহর রাসূল(সাঃ) কিভাবে দু’আ করতেন?

১) রাসূল(সাঃ)আমাদের শিখিয়েছেন প্রতিটা দু’আর শুরুতে ও শেষে আল্লাহর প্রশংসা করতে ও তাঁর রাসূলের উপর দরূদ পড়তে – আলহামদুলিল্লাহ ওয়া সালাত ওয়া সালাম ‘আলা রাসূলুল্লাহ।  কুরআনের একটি আয়াত আছে, “হে রাসূল, লোকেদের বলো,‘আল্লাহকে ডাক বা আর-রাহমানকে ডাক। যেভাবেই ডাক না কেন, সবচেয়ে উৎকৃষ্ট ও সুন্দর নামসমূহ তাঁর। সুন্দর নামসমূহ তাঁরই, তাই তোমরা তাঁকে ডাক তাঁর সুন্দর নামসমূহের দ্বারা।”

২) আল্লাহর সুন্দর গুণাবলীর দ্বারা তাঁকে ডাকুন – রাসূল(সাঃ) আমাদের শিখিয়েছেন, “যে ব্যক্তি মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞ না সে আল্লাহর প্রতিও কৃতজ্ঞ না।”

রাসূল(সাঃ)আল্লাহর হাবীব। কারও মন পাওয়ার জন্য তাকে ভাল কথা বলতে হয়, সে ভালবাসে এমন কিছু করতে হয়। তাই যে আল্লাহর হাবীবের প্রতি ভালবাসা প্রকাশ করে সে আল্লাহর ভালবাসা জিতে নেয়।  

আমরা আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞ হতে পারব না যদি না আমরা মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞ হই এবং রাসূল(সাঃ) এর চেয়ে বেশি আর কেউ আমাদের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেননি। আমাদের সকলের উচিত সীরাহ নিয়ে পড়াশোনা করা। তাঁর জীবন সম্পর্কে জানলে আল্লাহর কাছে দু’আ করার সময় তাঁর উপর সালাম পেশ করতে আমরা আরও বেশি উদ্বুদ্ধ হব।

৩) হাত তুলুন –এই ভঙ্গিটা ভিক্ষুকের সাথে তুলনীয়। রাসূল(সাঃ) আল্লাহর সামনে দু’আ করার সময় হাত তুলতেন ও তা প্রসারিত করতেন। কেন জানেন? কারণ এটা ভিক্ষাপ্রার্থীর ভঙ্গি। দু’আ করার সময় হাত তোলা অনেক মানুষের জন্যই কষ্টকর কাজ। যার দু’আ করার অভ্যাস নেই তার জন্য এভাবে হাতকে প্রসারিত করা খুব কঠিন কারণ আপনাকে নিজের অহংবোধ মাড়িয়ে কাকুতি-মিনতি করতে হবে, কান্নাকাটি করতে হবে। এক অভাবনীয় বিনয়!

৪) অন্তরে দৃঢ়বিশ্বাস পোষণ করা যে আল্লাহ আমাদের খেয়াল রাখবেন ও আমাদের দু’আর উত্তর দিবেন – এটা সুন্নাহ যে দু’আ করার সময় আমাদের কথা বা শারীরিক ভাষার মাঝে কোন সন্দেহ থাকবে না। আল্লাহর কাছে দু’আ করার সময় খুব বিনয়ী ও প্রত্যয়ী হন। আল্লাহ আমাদের কথা শুনতে বাধ্য নন। কোন ক্ষুধার্ত ভিক্ষুক উদ্দেশ্যহীনভাবে বলে না যে, “যদি সম্ভব হয় তাহলে এই ভাইকে কিছু খাবার দিন।” যে ভিক্ষুক খাবারের জন্য অস্থির সে বলে, অনুগ্রহ করে আমাকে খেতে দিন। সে আপনার পা ধরবে। আপনি যদি হাঁটতে শুরু করেন তাহলে সে আপনার সাথে হেঁচড়ে যাবে। সে অনুনয় বিনয় করবে, কাঁদবে। তার চোখ দিয়ে কান্না ঝরবে। সে খাবারের জন্য জোরাজুরি করবে কারণ সে মরিয়া হয়ে আছে। যখন আপনি আল্লাহর সামনে দু’আ করবেন, আপনার মরিয়া ভাব তাঁর সামনে প্রকাশ করুন। তাঁর সামনে ভিক্ষা চান, কাকুতি-মিনতি করুন, কাঁদুন।

রাসূল(সাঃ)আমাদের বলেছেন দু’আ করার সময় কাঁদতে এবং যদি আপনি কাঁদতে না পারেন তাহলে কাঁদতে চেষ্টা করুন। অন্ততপক্ষে দু’আ করার সময় আল্লাহর সামনে আপনার মরিয়া ভাব প্রকাশ করুন।

৫) যেসব সময় দু’আ কবুল হয় সেসব সময় দু’আ করুন – রাসূল(সাঃ) আমাদের এমন অনেক সময়ের কথা বলে গিয়েছেন যেসব সময় দু’আ করলে তা কবুল হয়। যেমনঃ

রাতের শেষ তৃতীয়াংশ। হাদীস কুদসীতে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালা বলেছেন, “এমন কেউ কি আছে যে আমার কাছে ক্ষমা চায়? এমন কেউ কি আছে যে আমার কাছে কিছু চায়? এমন কেউ কি আছে যার কোন প্রয়োজন আমি পূরণ করব?” আল্লাহ নিজে সেই সময় ভিক্ষুকদের ডেকে ডেকে জিজ্ঞেস করেন যেন তিনি তাদের কিছু দিতে পারেন। ফজরের কিছু আগে উঠুন। আমরা সেহরির জন্য এলার্ম দেই। তেমনভাবে কয়েক মিনিট আগে আপনার এলার্ম দিন। অন্তত পাঁচ মিনিট আগে উঠুন, উঠে দু’আ করুন।

যখন আমরা রোজা ভাঙ্গি। রোজা ভাঙ্গার পাঁচ/দশ বা পনের মিনিট আগে এলার্ম দিয়ে শান্ত হয়ে বসে দু’আ করুন। আগের দিনের অনেক সৎকর্মশীল মানুষ লিখে রাখতেন তারা কি দু’আ করবেন যেন সেসব দু’আর কথা তাদের মনে থাকে। আমরা যে কোন গুরুত্বপূর্ণ জিনিসের জন্য লিস্ট বানাই। দু’আ করার কথাও বিশেষভাবে মনে রাখুন এবং একটা দু’আর লিস্ট বানান। আমাদের প্রত্যেকের একটা দু’আর লিস্ট থাকা উচিত এবং সেটা নিয়ে আমাদের সেহরি ও ইফতারের আগে বসা উচিত। আমাদের খাদ্যের চাহিদা পূরণ করার আগে আমাদের উচিত নিজেদের আত্মীক চাহিদা পূরণ করা।

সালাতের পর দু’আ করুন। আব্দুল্লাহ ইবন মাসউদ(রাঃ) তার ছাত্রদের ও পরিবারের সদস্যদের শিখাতেন, “তোমার প্রয়োজন ও পরিস্থিতি পরবর্তী ফরজ সালাতের জন্য জমা রাখ।” কারণ এটা দু’আ করার জন্য এক চমৎকার মূহুর্ত এবং এই সময় দু’আ কবুল হয়।  

শুক্রবার একটা সময় আছে যখন দু’আ কবুল হয়। অনেক আলিমরা বলেন এই সময়টা হচ্ছে আসর থেকে মাগরিব পর্যন্ত।

কোন জিনিসগুলো দু’আ কবুল হওয়ার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়?

আমাদের জীবনে আল্লাহর অবাধ্যতা করা, বিশেষ করে হারাম জিনিস খাওয়ার মাধ্যমে। হারাম খাবার আমাদের দু’আকে অগ্রহণযোগ্য করে তোলে। রাসূল(সাঃ) এক ব্যক্তির কথা বলেছিলেন যার চুল এলোমেলো, তার পোশাক নোংরা। সে ক্ষুধার্ত ও তৃষ্ণার্ত অবস্থায় ভ্রমণ করছিল। সে আকাশের দিকে তাকিয়ে বলল, “হে আল্লাহ, আমাকে সাহায্য করুন।” আল্লাহর রাসূল(সাঃ)বললেন, “আল্লাহ কেন তার দু’আ কবুল করবেন? সে যে অর্থ দিয়ে পোশাক কিনে পড়েছে তা হারাম উপায়ে আয় করা হয়েছে (যেমন, মিথ্যা কথা, চুরি, ধোঁকাবাজি ইত্যাদি)। সে যা খায় ও পান করে তা হারাম উপায়ে অর্জন করেছে।” সে তার সম্পূর্ণ জীবন যাপন করছে হারাম পথে আসা উপার্জন দিয়ে। সেটা মদ হতে পারে, শুকরের মাংস হতে পারে অথবা সুদও হতে পারে। যদিও এটি একটি স্পর্শকাতর বিষয় কিন্তু আমাদের বুঝতে হবে যে এখানে আল্লাহ এবং তাঁর রাসূল বলছেন আমাদের কী করা উচিত আর কী করা উচিত না। কিন্তু বিষয়টা আমাদের অহংবোধে আঘাত করে। কোন বিশেষ আলিম বিশেষ কিছু মানুষের জন্য বিশেষ কোন পরিস্থিতিতে বিশেষ কোন ফতোয়া দিয়ে হারামকে হালাল করে দিতে পারেন। এই লেখাটা কোন ফিকহী বিষয় নিয়ে না। আমাদের বুঝতে হবে যে ফাতোয়ার  উপর নির্ভর করে না বরং তাকওয়ার  উপর নির্ভর করে জীবন যাপন করা আমাদের প্রত্যেকের নিজেদের প্রতি ও মহান আল্লাহর প্রতি একটা দায়িত্ব। যে জিনিস আল্লাহকে সন্তুষ্ট করে সে জিনিসকে আমাদের প্রাধান্য দিতে হবে। যখন আমরা হারাম খাবার খেয়ে এর স্বপক্ষে সাফাই গাই তখন আমরা নিজেদের ছাড়া আর কারোই ক্ষতি করি না। কারণ হারাম খাবার দু’আ কবুলের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

যে দু’আটা আমরা রামাদানে পড়ি

রাসূল(সাঃ) আইশা(রাঃ)-কে একটা দু’আ শিখিয়েছিলেন যা পড়ে আমরা রামাদানে বিশেষ উপকার পেতে পারি। আইশা(রাঃ) রাসূল(সাঃ)-কে জিজ্ঞেস করেছিলেন তিনি রামাদানের শেষ দশ রাত্রিতে লাইলাতুল কদর খোঁজার উদ্দেশ্যে কী দু’আ পড়তে পারেন। আল্লাহর রাসূল(সাঃ) তাকে যে দু’আ শিখিয়েছিলেন তা হলোঃ আল্লাহুম্মা ইন্নাকা ‘আফউয়ুন তুহিব্বুল ‘আফওয়া ফা’ফু‘আন্নী।

আল্লাহুম্মা – মান্‌ হে আল্লাহ  কিছু আলিম বলেন যে এই শব্দটা আল্লাহর সমস্ত নাম ও গুণাবলীকে অন্তর্ভুক্ত করে। এই শব্দটা বিশেষভাবে আল্লাহকে ডাকার জন্য ব্যবহৃত হয়। রাসূল(সাঃ)-এর শেখানো অনেক দু’আই আল্লাহুম্মা দিয়ে শুরু হয়েছে।

আল্লাহুম্মা ইন্নাকা – মানে, হে আল্লাহ নিশ্চয়ই তুমিই।  এখানে জোর প্রদান করা হয়েছে। আমরা সরাসরি আল্লাহ তা’য়ালার সাথে কথা বলছি।

আফউয়ুন – আল-‘আফুউ আল্লাহর একটা গুণ যা আল-‘আফউ থেকে এসেছে। আরবীতে আল-‘আফউ অর্থ হচ্ছে কোন কিছু উপেক্ষা করা, দেখেও না দেখা। আল-‘আফুউ হচ্ছেন তিনি যিনি কোন কিছু অধিক পরিমাণে উপেক্ষা করেন।

হে আল্লাহ তুমিই মানুষের পাপকে অধিক পরিমাণে ও বারবার ক্ষমা করে থাক।

আপনি যদি কাউকে খুব দয়ালু বা পরিশ্রমী বলেন, তাহলে হতে পারে যে সেই মানুষটা তার পরিস্থিতির কারণে পরিশ্রমী হতে বাধ্য হয়েছে। কিন্তু সে আসলে পরিশ্রম করতে পছন্দ করে না। তাই আমরা যখন আল্লাহুম্মা ইন্নাকা ‘আফউয়ুন বলে তারপর বলি তুহিব্বুল ‘আফওয়াফা’ফু ‘আন্নী  তখন এর অর্থ হচ্ছে “তুমি আমাদের ভুলভ্রান্তিকে উপেক্ষা করতে ভালবাস, তাই হে আল্লাহ আমাদের ভুলভ্রান্তিকে ক্ষমা কর।” কী সুন্দর ও ব্যাপক এই দু’আর অর্থ! আমাদের সবার উচিত রামাদানের রাতে ও দিনে রোজাদার অবস্থায় বেশি বেশি এই দু’আ পড়ার অভ্যাস করা, এটা বোঝা, মুখস্ত করা, শেখা ও অন্যকে শিখিয়ে সাদাকায়ে যারিয়ার পথ উন্মুক্ত করা।

সীরাহ থেকে শেখা

আমরা সবাই জানি যে বদরের যুদ্ধ হয়েছিল রামাদান মাসে। সেদিন কী হয়েছিল এই ব্যপারে আমাদের কিছুটা ধারণাও আছে। কিন্তু বদরের যুদ্ধের আগের রাতে কী হয়েছিল সে ব্যপারে আমরা তেমন কথা বলি না। হাদীস থেকে আমরা জানি যে রাসূল(সাঃ) সাহাবীদের সাথে তাঁবু গেড়েছিলেন। কিন্তু বদরের যুদ্ধের আগে উনি আলাদা তাঁবুতে ছিলেন। আবু বকর(রাঃ) গভীর রাতে রাসূল(সাঃ)-এর তাঁবুতে ঢুকে দেখেন যে উনি আল্লাহর কাছে দু’আ  করছেন।

তিনি যে দৃশ্য দেখলেন তা হচ্ছে এই যে রাসূল(সাঃ) তাঁর দুই হাত মাথার উপরে তুলে ধরেছেন। তিনি কাঁদছেন, তাঁর দু’চোখ বেয়ে পানি গড়িয়ে পড়ছে। তিনি পরদিন যুদ্ধক্ষেত্রে বিজয়ের জন্য, সাহাবাদের নিরাপত্তার জন্য আল্লাহর কাছে বার বার দু’আ করছেন, কাকুতি-মিনতি করছেন। তিনি দুনিয়ার বুকে আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠার জন্য দু’আ করছেন। এমন সময় রাসূল(সাঃ) যে শাল পড়ে ছিলেন তা খুলে নিচে পড়ে গিয়েছিল।

উনাকে এভাবে কান্নাকাটি করে বার বার দু’আ করতে দেখে আবু বকর(রাঃ) কেঁদে ফেললেন। তিনি পেছন থেকে তাঁর গায়ে শালটা জড়িয়ে দিয়ে বললেন, আপনার দু’আ কবুল হয়েছে, হে আল্লাহর রাসূল, আল্লাহ আপনার দু’আ কবুল করেছেন। আল্লাহ আপনার দু’আর উত্তর দিয়েছেন, হে আল্লাহর রাসূল, আল্লাহ আপনার দু’আর উত্তর দিয়েছেন।”

এমন ছিল বদরের যুদ্ধের আগের রাত। বড় কিছু অর্জন করার আগে, জীবনের কোন গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তের আগে আমাদের উচিত আল্লাহর কাছে দু’আ করে নেয়া। আমাদের জীবনের প্রতিটা বড় অর্জন যেন হয় দু’আর ফলাফল। তাহলে আমাদের জীবনের প্রতিটা অর্জন হবে বদরের যুদ্ধ জয়ের মতো বরকতময়। এবং সবসময় মন থেকে বিশ্বাস করবেন যে আপনার জন্য যা ভালো হবে শেষ পর্যন্ত আল্লাহ তাই করবেন।

(শাইখ আবদুল নাসির জাংদার লেকচার থেকে অনূদিত)

সম্পাদনায়ঃ হাবিবা মুবাশ্বেরা

লেখাটি কি আপনার উপকারে এসেছে?
হ্যানা