[pullquote align=center]

আসলে আপনাকে বুঝতে হবে, আপনার বাচ্চার জন্য কোনটা স্বাভাবিক আর কোনটা অস্বাভাবিক।

[/pullquote] diarrheaনবজাতক বাচ্চারা সাধারনত বারবার পায়খানা করে- হতে পারে সে যতবার দুধ খাবে ততবার; গড়পড়তা তাদের পায়খানা বেশ নরম হয়। বিশেষ করে বাচ্চা যদি বুকের দুখ খায় তবে পায়খানা তরল হবার সম্ভাবনা বেশি। এছাড়াও আপনি মা হিসেবে কি খাচ্ছেন, তার ওপরও বাচ্চার পায়খানার গতিপ্রকৃতি নির্ভর করে

 

যেই মাত্র বাচ্চা শক্ত খাবার খাওয়া শুরু করে, আপনি খেয়াল করবেন বাচ্চার পায়খানা শক্ত হওয়া শুরু করেছে। তবে যাই হোক না কেন, বাচ্চার খাদ্যাভ্যাসের উপর নির্ভর করে তার পায়খানা সবসময় বদলাতে থাকে।

এসব বিষয়ের কারণে আপনার বাচ্চার ডায়রিয়া হয়েছে কি-না, তা বুঝা কঠিন হতে পারে। মোদ্দাকথা হলো, আপনার বাচ্চার পায়খানা হঠাৎ নরম হওয়া মানেই কিন্তু ডায়রিয়া নয়, তা নিয়ে চিন্তিত হওয়ারও তেমন কিছু নেই। তবে এই পরিবর্তন যদি এমন হয়, যে আপনার বাচ্চা স্বাভাবিক সময়ে তুলনায় বেশি বা বারবার পায়খানা করছে এবং তা প্রতিবারই একেবারে তরল পানির মতো হয়, তবে সম্ভবত এটা ডায়রিয়া। এছাড়াও জ্বরের সাথে বাচ্চার অতিরিক্ত কান্নাকাটি, শরীরে র‍্যাশ (rash) এসব ডায়রিয়ার লক্ষণ হিসেবে বিবেচিত হয়।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ডায়রিয়া কি না তা বাচ্চার মা-ই বুঝে ফেলেন। কারণ প্রকৃতিগতভাবে আমাদের দেশের মায়েরা অনেক সতর্ক ও যত্নবান। এছাড়াও বর্তমানে নতুন বাবা-মা হওয়া দম্পতিরা আগের তুলনায় বেশি সচেতন। তাই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ডায়রিয়া মারাত্মক  হওয়ার আগেই যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ায় তা ভাল হয়ে যায়।

[blockquote align=center] ডায়রিয়ায় আক্রান্ত বাচ্চার জন্য সবচেয়ে ভয়ংকর বিষয় হলো তরলশূন্যতা[/blockquote]ডায়রিয়াজনিত পানিশূন্যতা খুবই মারাত্মক, এমনকি জীবনঘাতি। তাই ডায়রিয়া হোক বা না হোক, খেয়াল রাখুন বাচ্চা যেন সবসময়ই পর্যাপ্ত পানি বা পানি জাতীয় খাবার গ্রহন করে।