bonding-with-baby

একটা কচ্ছপের বাচ্চার কথা ভাবুন, যেটা মাত্র জন্ম নিল। ডিম থেকে বের হবার কিছু পরেই সে সমুদ্রের দিকে যাত্রা শুরু করে। অথবা একটা জিরাফের বাচ্চার কথা, যেটা জন্মানোর কয়েক ঘন্টার মাঝে হাটাহাটি শুরু করে।

কিন্তু মানুষের বাচ্চা যেন পুরো অন্য এক গল্প। সে জন্মের ২ মাস পর্যন্ত নিজের মাথাটাও তুলতে পারে না। ৪ মাস আগে সে গড়াগড়ি দিতে শিখে না, এবং বসতে শিখতে তার ৬ মাস লেগে যায়। সে দাড়ানো শিখে ৯ মাস বয়সে আর হাটতে শিখে মোটামুটি ১বছর বয়সে। আপনি হয়তো খুশি হয়ে ভাবতে পারেন, যাক তাও ১ বছরে সে স্বনির্ভর হতে শিখলো!  কিন্তু মোটেই তা না! বরং সাধারণ আত্মরক্ষা বা নিজের হাতে খাওয়ার মতো অতি সাধারণ কৌশল রপ্ত করতে তার আরো কয়েক বছর লেগে যায় এবং আশেপাশের দুনিয়ায় স্বনির্ভর হয়ে চলতে ফিরতে তার গড়পড়তা এক দশক লেগে যায়। 

তো মানব সন্তানের এই পরনির্ভরতার মহাকাব্য কেন লিখছি আমরা? কারণ আমরা দেখতে চাই যেই মানব শিশু এতটা নির্ভর করে বাবা-মা বা তার আশেপাশের মানুষের উপর, তার সাথে জন্মের পর একটা কার্যকর বন্ধন কেন গড়ে তোলা জরুরী বা কিভাবে সেই বন্ধন গড়ে তোলা যাবে এবং এর মাধ্যমে একটা স্বাভাবিক মানব শিশু কিভাবে গড়ে তোলা যাবে।

বিষয়সূচী
১. শিশুর সাথে বন্ধন কী?
২. কেন এই বন্ধন জরুরী?
৩. কীভাবে বন্ধন তৈরি করা যাবে?
৪. শিশু কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায়?
৫. শিশুর সাথে বাবার বন্ধন
৬. বন্ধন তৈরিতে সমস্যা হচ্ছে কি?
৭. তথ্যসূত্র

আর্টিকেল নিয়ে আপনার প্রশ্ন, অভিজ্ঞতা বা ফীডব্যাক শেয়ার করতে পাবলিক টেলিগ্রাম গ্রুপে যোগ দিন
মাতৃত্বের বিভিন্ন নোটিফিকেশন পেতে হোয়াটসএপ গ্রুপে যোগ দিন। এই গ্রুপে শুধুমাত্র এডমিন মেসেজ পাঠান।

শিশুর সাথে বন্ধন কী?

যখন মা বা বাবা সন্তানের দেখাশুনা করেন, তাকে খাইয়ে দেন, প্রস্রাবের পর ন্যাপি বদলে দেন বা কোলে নিয়ে হাটেন, কথা বলেন বা আদর করেন, তখন তাদের মাঝে একধরনের শক্তিশালী বন্ধন তৈরি হয়। এটা একই সাথে শারীরিক ও মানসিক বন্ধন।

এই বন্ধনের কারণে বাবা-মা সন্তানের জন্য একধরনের প্রবল টান অনুভব করেন, যেটা তারা আর কারো জন্য করেন না। এই আবেগ মা’কে মধ্যরাতে জাগিয়ে দেয় বাচ্চাকে খাওয়ানোর জন্য আর বাবারা কান্নারত সন্তানকে কোলে নিয়ে নির্ঘুম রাত কাটান।

কেন এই বন্ধন জরুরী?

একটা মানব শিশু বড় হয়ে কেমন মানুষ হবে, কেমন হবে তার সামাজিক আচরণ তার একটা ভিত গড়ে দেয় এই বন্ধন। গবেষনায় দেখা গেছে বানরের বাচ্চাকে যদি তার সত্যিকারের মা’র কাছ থেকে সরিয়ে নরম পুতুল মা’র কাছে দেয়া হয় তবে তাদের সামাজিক আচরণ সঠিকভাবে বিকশিত হয় না। কিছু ক্ষেত্রে বাচ্চাগুলো একধরনের হতাশায় ভোগে। বিজ্ঞানীদের ধারণা মানব শিশুর ক্ষেত্রে এই বন্ধনের অভাব একই ধরনের ফলাফল নিয়ে আসবে।

শিশু ও মা’র (বা তার প্রধান সেবাদাতা) এই বন্ধন শিশুর শরীরে হরমোন নিঃসরণ ঘটায় ও মস্তিস্কের বিকাশে সহায়তা করে। বন্ধনের ফলে তার মস্তিষ্কের কোষগুলোর মাঝে সংযোগ বাড়ে, যেটা তার শেখার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে। এই বন্ধন শিশুকে নিজেকে চিনতে সাহায্য করে।

কীভাবে বন্ধন তৈরি করা যাবে?

বাচ্চার সাথে সম্পর্ক প্রতিটা বাবা-মা’র ক্ষেত্রে আলাদা। নতুন বা প্রথমবার বাবা-মা’র জন্য এটা একটু চ্যালেঞ্জিং, তবে সময়ের সাথে সাথে তারা এটা শিখে ফেলেন। 

  • বাচ্চারা গর্ভে থাকা অবস্থায়ই  মা’র গলার স্বর চিনতে পারে। জন্মানোর পর বাচ্চা অল্পদিনেই প্রথমে মা এবং পরে বাবার বা অন্যান্য কাছের আত্মীয়দের গলার স্বর চিনতে পারে। তাই তার সাথে কথা বলা, আদরের শব্দ করা বা নামে ডাকা হতে পারে প্রথম ধাপ।
  • স্পর্শ করা হলো দ্বিতীয় ধাপ। হাত দিয়ে বাচ্চাকে ছোয়া, গায়ে গা লাগানো এগুলো বাচ্চাকে আরাম ও নির্ভরতার অনুভূতি দেয় এবং বাচ্চার মস্তিষ্ক গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।
  • চোখে চোখ রেখে তাকানো এবং বাচ্চার দৃষ্টি সীমায় নিজেকে নেয়া। খেয়াল করলে দেখবেন যে বাচ্চা তার জন্মের পর বেশ অল্প দূরত্বে দেখতে পায় এবং বয়স বাড়ার সাথে তার এই সীমা বড় হয়।
  • বাচ্চারা চোখ দিয়ে চলমান বস্তুকে অনুসরন করে, তাই তার সামনে মাথা নাড়িয়ে কথা বলা বা হালকা গতিতে নড়াচড়া করাকে সে চোখ দিয়ে অনুসরন করে ।
  • শিশু হাসলে তার জবাবে হাসা বা খুশির শব্দ করা এধরনের মিথস্ক্রিয়া শিশুকে শেখায় কোন আচরণটা কাঙ্খিত। ফলে সে আরো বেশি হাসতে উৎসাহিত হয়। এবং কান্নার সময় মা’র প্রতিক্রিয়া দেখে সে বুঝতে শিখে কখন কাঁদতে হবে।
  • বাচ্চার আচরণকে খেয়াল করুন যাতে তার বিভিন্ন আচরনের কারণ বুঝতে পারেন এবং ভবিষ্যত আচরণ অনুমান করতে পারেন।
  • নবজাতক বাচ্চার যখন আপনাকে দরকার তখনই তার কাছে আসতে চেষ্টা করুন, আর তা  না পারলে মা হিসেবে আপনার নিজেরই খারাপ লাগবে। তাই তার কাছে আসার পর তাকে আশ্বস্ত করুন মুখ দিয়ে আদরের শব্দ করে এবং আপনার শরীরের স্পর্শ দিয়ে।
  • বাচ্চাকে নিজ শরীরের বাম দিকের স্পর্শ দিন, যাতে সে আপনার হৃদস্পন্দন শুনতে পায়।
  • বাচ্চাকে ছন্দময় কিছু শোনান, বা বই পড়ে শোনান। মনে করবেন না যে এত ছোট বাচ্চা বইয়ের কী বুঝবে। সে আপনার কন্ঠের ওঠানামা ও মুখভঙ্গি খেয়াল করবে এবং এটা আপনাদের মাঝে বন্ধন দৃঢ় হতে সাহায্য করবে।

শিশু কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায়?

শিশুর মা সাধারানত তার প্রাথমিক সেবাদাতা এবং স্বভাবতই মা’র সাথে তার বন্ধন বেশ জোরালো হয়। মা প্রতিদিন শিশুর যত্ন নেয়ার মাধ্যমে তাদের এই সম্পর্ক তৈরি হয় এবং চলমান থাকে। এরপর শিশু একপর্যায়ে যখন মা’র দিকে তাকিয়ে হাসে বা মা’র কোন কথায় সাড়া দেয় তখন মা’র হৃদয় ভালবাসায় পরিপূর্ণ হয়ে যায়।

বয়স ও বৃদ্ধির বিভিন্ন অবস্থায় শিশুর যে কাজগুলো এই বন্ধনের পরিচায়ক তা হলো –

  • মা’র চোখে গভীরভাবে তাকানো বা আই কন্টাক্ট
  • হাসা, আনন্দ-প্রকাশক শব্দ বা মা’র মনযোগ আকর্ষনকারি শব্দ করা
  • দুই হাত বাড়িয়ে দেয়া
  • মা’র দিকে হামাগুড়ি দেয়া
  • কথা বা আচরণ নকল করা
  • কান্না করে মনযোগ কাড়ার চেষ্টা

শিশুর সাথে বাবার বন্ধন

ঐতিহাসিকভাবে আমাদের দেশে বাবারা সন্তানদের ব্যাপারে উদাসীন। পরিবারে বাবার ভূমিকা মূলত অর্থের যোগানদাতা, সন্তান জন্মদান ও লালন-পালন যেন মা’র একার দায়িত্ব। আশার কথা হলো, বর্তমান বাবাদের প্রজন্ম এই ধারা থেকে বের হয়ে আসছে।

বাচ্চার সাথে বন্ধন তৈরিতে বাবা মা থেকে কম সময় পাবে এটা স্বাভাবিক, কারণ মা মূলত স্তন্যদায়ী। বাচ্চার সাথে তার বাবার সম্পর্কের আঙ্গিক ভিন্ন ধরনের। এবং এই ভিন্নতা মা’র জন্যও বেশ স্বাস্থ্যকর কারণ এতে মা তার নিজের জন্য কিছুটা সময় বের করতে পারেন।

  • প্রসব বেদনা ও বাচ্চা প্রসবের সময় স্ত্রীর সাথে থাকা। পাশ্চাত্যে এটা বেশ সাধারণ ব্যাপার হলেও আমাদের দেশে এটার চল নেই। যে বাবা তার সন্তান প্রসবের বেদনা স্বচক্ষে দেখেন, বাচ্চার জন্য তার অনুভূতি না দেখা বাবার চেয়ে বেশি হবার সম্ভাবনা বেশি।
  • বাচ্চাকে খাওয়ানো (ফর্মুলা বা মা’র রেখে যাওয়া বুকের দুধ) বাবাদের জন্য দারুন অভিজ্ঞতা। খাবার সময় শিশু যেই গভীর দৃষ্টিতে তার বাবা/মা’কে দেখে সেটা দেখা একটা অনন্য অভিজ্ঞতা।
  • বাচ্চার ন্যাপি বা ডায়াপার বদলানো। সারাদিন স্ত্রী একা হাতে বাচ্চাকে সামলান। মধ্যরাতে বাচ্চার যদি ন্যাপি বদলানো দরকার পরে তবে বাবাদের এই সুযোগ কাজে লাগানো উচিত।
  • বাচ্চাকে গোসল করানো।
  • বাচ্চাকে খালি গায়ে কোলে নেয়া, যাতে তার ত্বকে বাবার স্পর্শ লাগে। এধরনের সরাসরি স্পর্শ শিশুর বেড়ে উঠায় খুব গুরুত্বপূর্ণ।
  • বাসার বাইরে ডাক্তার দেখানো বা শপিংয়ে গেলে বাচ্চাকে কোলে নেয়া, খাওয়ানো।

বন্ধন তৈরিতে সমস্যা হচ্ছে কি?

মা’র হরমোনগত বা শারীরিক কারণ বাচ্চার প্রতি ভালবাসায় প্রভাব ফেলতে পারে। হতে পারে মা পোস্টপার্টাম বিষন্নতায় ভুগছেন বা দীর্ঘায়িত প্রসব বেদনায় ক্লান্ত হয়ে আছেন। দুই ক্ষেত্রেই মা’র পরিবার ও স্বামীকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে এই সময় মা’কে সাহায্য করতে হবে।

যদি বাচ্চাকে ইনটেন্সিভ কেয়ারে রাখতে হয়, তবে সেসময় বাচ্চা দূরে থাকা এবং হাসপাতালের বিভিন্ন জটিলতা মা’কে হতবিহ্বল করে দিতে পারে। এসময় ধৈর্য ধরার বিকল্প নেই। বাচ্চাকে মা’র কোলে দেয়ার মতো অবস্থা হলে দায়িত্বপালনকারি নার্স আপনাকে সাহায্য করবে। তার আগে সম্ভব হলে বাচ্চার হাত ধরুন, তাকে গভীরভাবে দেখুন অথবা তার সাথে কথা বলুন, যদিও তাকে দেখে মনে হতে পারে যে সে বুঝতে পারছে না কিন্তু সে অনুভব করতে পারে। এসব কাজ মা হিসেবে আপনার মনকেও হালকা করবে।

বাবা হিসেবে যদি আপনি বাচ্চার সাথে আন্তরিক হতে না পারেন তাহলে একবার ভাবুন: বাচ্চার প্রতিদিনের যে কাজগুলো আপনার স্ত্রী করছেন, তাতে আপনার অংশগ্রহন কেমন? যদি এটা কমপক্ষে ২০% না হয়, তবে আপনার ভূমিকা বাড়াতে পারেন। বাচ্চার পেছনে সময় বিনিয়োগ আপনার মনে তার জন্য ভালবাসা তৈরি করবে।

শিশু সন্তানের সাথে ভালবাসার বন্ধন তৈরির কোন ম্যাজিক ফর্মূলা নেই বা এতে জোরাজুরিও করা যাবে না। আমাদের নবী মুহাম্মদ (সাঃ) একবার বাচ্চাদের আদর করছিলেন দেখে এক বেদুইন অবাক হয়ে বলছিলেন যে তিনি তার সন্তানদের কখনো আদর করেননি। জবাবে নবী (সাঃ) আফসোস করে বলেছিলেন যে আল্লাহ যদি তার অন্তর থেকে ভালবাসা তুলে নেন তবে কী বা করার আছে!

মূলত বাচ্চার জন্য সময় ব্যয় করা-ই বাচ্চার সাথে সুন্দর ও স্বাস্থ্যকর সম্পর্ক গড়ে তোলার সবচেয়ে কার্যকরী পথ। শুরুতে এই পথে যাত্রা বাবা-মা দুজনের জন্য কঠিন হতে পারে, তবে ধৈর্য ধারন করলে সময়ের সাথে সাথে অনেক কিছু সহজ হয়ে যায়, এবং বাবা-মা হিসেবে সন্তান পালনের বিভিন্ন অসাধারন অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা লাভের সুযোগ হয়।

তথ্যসূত্র:

১. কীডজ হেলথ
২. PregnancyBirthBaby

লেখাটি রিভিউ করেছেন –

ডাঃ সারওয়াত জাবীন আনিকা
এমবিবিএস
KMC (IMCS) – এ বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত

লেখাটি কি আপনার উপকারে এসেছে?
হ্যানা