আল্লাহ্‌ এর ইচ্ছা ছাড়া কোন কিছুই সম্ভব নয়। তাই স্বাভাবিক প্রসব (Normal Vaginal Delivery)এর জন্য চেষ্টা করার আগে আল্লাহ্‌ এর কাছ থেকেই চেয়েছিলাম যেন তিনি আমার প্রসব অত্যন্ত স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় হওয়াটা সহজ করে দেন। এবং তাঁর উপর তাওয়াক্কুল হয়েই সব প্রিপারেশন নিয়েছিলাম।

আমার এই লেখায় থাকবে প্রসব পূর্ববর্তী এবং প্রসবকালীন সময়ের কথা। তবে একটা কথা বলে রাখি, সি সেকশন হোক আর নরমাল ডেলিভারি হোক, মা হওয়া অবশ্যই কষ্টের। যে পদ্ধতিতেই সন্তান পৃথিবীতে আসুক একজন মা কে অবশ্যই কষ্ট ভোগ করতে হবে। তবে সেই কষ্টের মাঝেই রয়েছে স্বস্তি ও আনন্দ।

নরমাল ডেলিভারি মা ও সন্তান উভয়ের জন্য ভাল, তবে সি সেকশনও আল্লাহ্‌ এর এক রহমত। এর মাধ্যমে প্রচুর মা ও শিশুর জীবন রক্ষা হচ্ছে। সি সেকশন তখনই খারাপ যখন ডাক্তাররা পয়সার লোভে এটি করেন অথবা রোগীরা স্বাভাবিক প্রসবকে ভয় পেয়ে নিজেদেরকে এই মেজর অপারেশনের ছুরি কাঁচির নিচে ঠেলে দেয়। প্রসব যে ভাবেই হোক, মা ও শিশুর সর্বোচ্চ স্বার্থ রক্ষাই এখানে মুখ্য হওয়া উচিৎ।

শুরুর কথা

স্বামীর কর্মসূত্রে আমরা মালয়শিয়া থাকি। এ দেশে রাস্তায় বের হলেই প্রেগন্যান্ট মহিলা চোখে পড়ে। মালয় জাতিগোষ্ঠির সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য সরকার অধিক সন্তান হলে নানারকম সুবিধা দিয়ে থাকে। তাই প্রায় প্রতিটি পরিবারেই অন্তত ৫/৬ টি সন্তান দেখা যায়। এখানে প্রেগন্যান্ট হলেও মহিলারা খুবই কর্মঠ থাকে ও স্বাভাবিক জীবন যাপন করে। সত্যিকারের বড় সমস্যা না হলে ডাঃ রা বেডরেস্ট দেন না। তারা সব সময় একটিভ থাকার ও নিয়মিত ব্যায়াম করার পরামর্শ দেন। এবং না পারতে সি সেকশন করেন না।

আর্টিকেল নিয়ে আপনার প্রশ্ন, অভিজ্ঞতা বা ফীডব্যাক শেয়ার করতে মাতৃত্ব ডট কম পরিচালিত সামাজিক চ্যানেলে যোগ দিন

আমার প্রেগ্নেন্সির প্রথম তিন মাস খুব ভয়াবহ কেটেছে, কিছুই খেতে পারতাম না, বমি, অরুচি সবই হত। এক সময় শুরু হল স্পটিং (spotting), দেখা গেল প্লাসেন্টা জরায়ুর মুখ ঢেকে রেখেছে। দেশের সবাই আমাকে বললো সম্পূর্ণ বেড রেস্টে থাকতে, কিন্তু এখানে ডাঃ বললো বেড রেস্টের কোন দরকার নেই, নরমাল কাজ কর্ম করতেও সমস্যা নেই, শুধু নিজেকে বেশি ক্লান্ত (Exhausted) করা যাবে না। সাথে ডুফাস্টোন ট্যাবলেট খেতে দিল। আর বললো বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই প্লাসেন্টা উপরের দিকে উঠে যায়। আলহামদুলিল্লাহ্‌ ২০ সপ্তাহের আল্ট্রাতে দেখা গেল, প্লাসেন্টা উপরে উঠে গেছে।

এর মাঝে ডায়বেটিস ধরা পড়লো, সেটা নিয়ন্ত্রণে আসার পর, আল্ট্রাতে আরেকটা সমস্যা বের হল। দেখা গেল একটা ঠিক হলেই অন্য একটা কিছু বেঠিক হয়ে যেতে লাগলো।

এদিকে আমার বিয়ের আট বছর পর, দীর্ঘকাল ইনফারটিলিটি পার হয়ে, আল্লাহ্‌ এর রহমতে এইবার কনসিভ করেছি, বয়স তিরিশের উপর। সব মিলিয়ে যে কোন ছোট খাট ঝুঁকি-ই এড়িয়ে যাবার মত ছিল না। আল্ট্রাসনোলজিস্ট আরো বললেন, যেহেতু ডায়েবেটিস আছে, তাই বেবি বেশি বড় হয়ে গেলে, আগে আগে বাচ্চা বের করে ফেলতে হতে পারে।

সব মিলিয়ে এক টেনশনময় পরিস্থিতি। শেষ পর্যন্ত আল্লাহ্‌ এর কাছে দুয়া করলাম, হে আল্লাহ্‌ আমার ভেতর কি কি সমস্যা আছে, আমি জানি না, আপনি যেহেতু আমাকে সৃষ্টি করেছেন, তাই আপনিই আমার সব কিছু ঠিক করে দিন।

প্রস্তুতিঃ

সব সময়েই আমাকে নিয়মিত হাঁটা, সাঁতার কাটা, ঘরের স্বাভাবিক কাজকর্ম করার, ইউটিউব দেখে প্রিনেটাল এক্সারসাইয করার পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। এ দেশে যেহেতু কাজের মানুষ নেই, তাই ঘর মোছা ছাড়া বাকি সব কাজ যখন শরীরে যতটুকু কুলাতো করার চেষ্টা করতাম। কাপড় ওয়াশিং মেশিনে ধুতাম।

কিন্তু সত্যিকার ভাবে নিয়ম করে হাঁটা আর ব্যায়াম করা শুরু করেছিলাম ৩৭ সপ্তাহের পর থেকে। ৩৫ সপ্তাহ থেকে হালকা পাতলা ভাবে শুরু করেছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ্‌ প্রতিদিন চেষ্টা করতাম কম বেশি ৩০ মিনিট/ দু কিমি হাঁটতে এবং আফসোস করতাম, কেন আরো আগে থেকে হাঁটা শুরু করলাম না, তাহলে এখন আরো বেশি সময় হাঁটার শক্তি পেতাম।

নরমাল বা সিজার যেটাই হোক, শরীর সচল থাকলে মানিয়ে নেয়া সহজ হয়। আর নরমাল হতে হলে তো অনেক বেশি শারীরিক সক্ষমতা লাগে। যে কারনে শহরের মেয়েদের তুলনায় গ্রামের কর্মঠ মেয়েদের নরমাল ডেলিভারি অনেক সহজে হয়ে থাকে।

এটা ছাড়াও প্রিনেটাল এক্সারসাইয করতাম ইউটিউব থেকে দেখে। ৩৭ সপ্তাহের চেকাপে ডাঃ আমাকে নিজে নিজে লেবার ইনডিউসের কিছু এক্সারসাইয করার পরামর্শ দিল। কারন ততদিনে বেবি ম্যাচিওরড হয়ে গেছে। যদিও আমি মনে মনে চাইতাম অন্তত ৩৯ সপ্তাহ যেন বেবি আমার ভেতর থাকে। কারন সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে ৩৯ সপ্তাহ হলে বাবু পুরোপুরি ম্যাচিওরড হয় এবং এটাই বাবুর জন্য সবচেয়ে ভাল।

আমাকে নিজে নিজে লেবার ইনডিউস করার যেসব পরামর্শ দেয়া হল, সেগুলো ছিলঃ

  • সিঁড়ি দিয়ে উঠানামা করা,
  • যত বেশি সম্ভব হাঁটা, (হাঁটতে বিরক্ত লাগলে সকালে কোন শপিং মলে চলে যেয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত উইন্ডো শপিং করা),
  • স্বামী সহবাস বেশি বেশি করা,
  • স্কোয়াট (নিচু কমোডে বসার মত পজিশনে বসা) করা এবং
  • বার্থিং/জিম বলে বসে বসে লাফানো।

ডাঃ আরো বললো, সে নিজেও তার বাচ্চা হবার সময় বার্থিং বলে লাফিয়ে লাফিয়ে লেবার ইনডিউস করেছিল। (এই যাবতীয় ব্যায়ামগুলো ডাঃ এর পরামর্শ ছাড়া করবেন না। যদি বাচ্চার মাথা নিচের দিকে না থাকে, ব্রিচ পজিশনে থাকে বা অন্য কোন কমপ্লিকেশন থাকে তাহলে এসব করা যাবে না)

এর মাঝে আমাকে আরো বলা হল, যেহেতু আমার ডায়বেটিস আছে, তাই ৪০ সপ্তাহের মাঝে পেইন না উঠলে আমাকে ইনডিউস করা হবে। এদেশের ইনডিউসের পদ্ধতি অত্যন্ত ভয়াবহ।

প্রথমে এরা জরায়ুর মুখে একটি বেলুন ঢুকিয়ে দেয় ক্যাথেটার দিয়ে, তারপর সেই বেলুন পানি দিয়ে ফোলানো হয় জরায়ুর মুখ বড় করার জন্য। অত্যন্ত কষ্টকর এই জিনিস তারা প্রায় দু দিন ধরে করতে থাকে। এভাবেও কাজ না হলে, জরায়ু মুখে একটা ট্যাব্লেট দিয়ে ট্রাই করে। এভাবে একভাবে না হলে অন্যভাবে ট্রাই করতে থাকে। কয়েকদিন এমন অত্যাচার চলার পরেও যদি কাজ না হয়, তাহলে সি সেকশন করে। আমার পরিচিত দুজন আপু এই প্রসেসের মধ্য দিয়ে গিয়েছিলেন, শেষ পর্যন্ত তাদের সি সেক করতে হয়েছিল। কিন্তু প্রচণ্ড এই যন্ত্রণা সহ্য করতে হয়েছিল প্রায় তিন চার দিন!

এই ভয়েই শুরু হল আমার পরিশ্রম। আল্লাহ্‌ এর নাম নিয়ে শুরু করলাম।জামাই একটা বার্থিং বল কিনে দিলো। চেষ্টা করতাম হাঁটা, ব্যায়াম, সিঁড়ি দিয়ে ওঠা নামা, বার্থিং বলে লাফানোর পেছনে অন্তত দু ঘণ্টা সময় দেয়ার। প্রতিদিন সবগুলো পারতাম না, যেদিন বেশি ক্লান্ত থাকতাম সেদিন কম সময় করতাম, কোন একটা বাদ দিয়ে যেতাম, তাও যতদূর পারতাম করতাম। সিঁড়ি দিয়ে ওঠা নামাটা মাঝে মাঝে করতাম।

সবচেয়ে দৃশ্যমান উপকার পেয়েছি হাঁটা ও বাউন্সিং টাইপের এক ধরণের স্কোয়াট করে। এগুলো করলে নিজেই টের পেতাম বেবির পজিশন নিচের দিকে নেমে গেছে। একদিনেই অনেকটুকু নেমে যেত! তবে যারা পুরো প্রেগ্ন্যান্সি উঠা বসা করে নামায পড়ে, চেয়ারে বসে পড়ে না, তাদের এত কিছু না করলেও চলে। কিন্তু প্রেগ্নেন্সির প্রথম দিকেই কিছু সমস্যার কারনে চেয়ারে বসে পড়ায়, শেষের দিকে আর অভ্যাস পরিবর্তন করতে পারি নি।

এখানে একটা কথা বলবো, যাদের বাসায় লো কমোড আছে, তারা গর্ভকালীন পুরো সময়েই লো কমোড ব্যাবহারের চেষ্টা করবেন। প্রথমে কষ্ট হবে, তারপর ইউজড টু হয়ে যাবেন। এই পজিশনে নিয়মিত বসলে বাচ্চার পজিশন নিচের দিকে নামা ও সঠিক ভাবে নামায় সহায়ক হয়।

এর মাঝে শুরু হল জিলহজ্জ মাস। এ মাসের প্রথম দশ দিন আল্লাহ্‌ এর নিকট অত্যন্ত পছন্দের। তিনি সুরাহ আল ফজরে এই দশ দিনের নামে শপথ করেছেন। এর মাঝে রয়েছে হজ্জের দিন ও কুরবানীর দিনের (৯ ও ১০ জিলহজ্জ) মত বরকতময় দিন। সারা বছরের সমগ্র দিনের ভেতর আল্লাহ্‌ এর নিকট সবচাইতে পছন্দের দিন হল ১০ই জিলহজ্জ। কারন এ দিন তাঁর নামে প্রচুর প্রাণ উৎসর্গ করা হয় ও হজ্জের অধিকাংশ কার্যাবলী সম্পন্ন করা হয়। বছরের এই দিন শয়তান সর্বাধিক লাঞ্চিত অবস্থায় থাকে।

আমার মনে মনে খুব ইচ্ছা হচ্ছিল এই দুই দিনের যেকোন একদিন যেন আমার সন্তান পৃথিবীতে আসে। পাঁচ বছর আগে হজ্জের সময় আরাফাতের ময়দানে আল্লাহ্‌ এর নিকট সন্তান চেয়েছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ্‌ পাঁচ বছর পর আরো এক আরাফাতের দিন আসন্ন, আর আমার ৩৯ সপ্তাহও শেষের দিকে।

রক্ত ভাংগা/ ব্লাডি শোঃ

দেশ থেকে আগের দিন শশুর শাশুড়ি এসে গেছেন। ৯ জিলহজ্জ দুপুর বেলা গোসলের আগে ইউটিউব থেকে শেখা লেবার ইন্ডুইসের যে এক্সারসাইয করতাম, সেটা শুরু করলাম। আগের রাত সারা রাত বলতে গেলে ঘুমাতে পারি নি। অদ্ভুত রকম অস্বস্তি লাগছিলো। হাজার বার বাথরুমে গিয়েছি ইউরিন ক্লিয়ার করার জন্য। বাচ্চা সেদিন সবচাইতে বেশি নড়ছিলো। মনে হচ্ছিল পেট ছিঁড়ে বের হয়ে আসবে। তখনই আসলে জরায়ুর মুখ খুলছিলো হয়তো, আমি বুঝতে পারি নি।

যাই হোক ব্যায়ামের স্কোয়াট পজিশনে বসার সাথে সাথে বাওয়ালের প্রেশার আসলো। এই এক্সারসাইয করলে প্রতিদিন আমার বাওয়াল ক্লিয়ার হয়ে যেত। এবারো ব্যায়াম শেষ না করেই বাথরুমে গেলাম।

নার্স আগেই বলে দিয়েছিল, তিন টা লক্ষণের যেকোন একটি দেখা দিলে হাসপাতালে যেতে। লেবার শুরুর লক্ষণ তিন টি হল- পানি ভাংগা, মিউকাস টাইপের ব্লাড যাওয়া অথবা পেইন ওঠা।

লাস্টের দিকে টিস্যু দিয়ে প্রতিদিন চেক করতাম। সেদিন চেক করতে গিয়েই দেখি সাদা টিস্যুতে পিরিওডের মত মিউকাস পূর্ন টকটকে লাল রক্ত! দেখেই কলিজা কাঁপাকাঁপি শুরু হয়ে গেল। এত দিন যে সময়ের জন্য অপেক্ষা করছিলাম, সেই লেবারের সময় কি এসেই গেল!

তাড়াতাড়ি আমার ডাক্তার ও ডাক্তার এক ফ্রেন্ড কে মেসেজ করলাম, যে আগে উত্তর দেয়। দু জনেই বললো এটা লেবারের আর্লি সাইন হতে পারে। তবুও হাসপাতালে গিয়ে চেক করিয়ে আসা ভাল। অনেক সময় রক্ত আসার দু এক দিন পর লেবার পেইন শুরু হয়।

আমি দ্রুত আমার স্বামীকে ফোন দিলাম অফিস থেকে তাড়াতাড়ি আসার জন্য। সেই ফাঁকে গোসল করে, যতদূর সম্ভব পরিষ্কার হয়ে নিলাম, কারন কোন কারনে সি সেক হলে তো বেশ অনেক দিন গোসল করতে পারবো না। আল্লাহ্‌ এর কাছে দুয়া করলাম। এর ভিতর ও অফিস থেকে চলে আসলো, টেনশনে গলা দিয়ে খাবার নামছিল না, জোর করে কিছু টা খেয়ে নিলাম। আগে থেকে রেডি করা হাসপাতাল ব্যাগ, এক বোতল জমজমের পানি আর খেজুর নিয়ে রওনা হলাম হাসাপাতাল অভিমুখে।

সেখানে ইমারজেন্সিতে এক জুনিয়র ডাঃ চেক করে বললো, আপনার মাত্র এক সেমি খুলেছে। যার অর্থ আমাকে বাসায় পাঠিয়ে দেবে। ঠিক তখনই এক সিনিয়র ডাঃ এসে কি মনে করে আবার চেক করলো এবং জুনিয়র ডাঃ কে বকাবকি শুরু করে দিল। কারন আমার জরায়ুর মুখ ৩ সেমি ওপেন হয়ে গিয়েছে ও সারভিক্স খুবই নরম হয়ে গিয়েছে। নরমাল ডেলিভারির জন্য যা খুব প্রয়োজন। সাথে সাথে আমাকে এডমিট করালো।

পরদিন ঈদ, হাসপাতালে মানুষজন কম। আমাকে একটা ওয়ার্ডে রাখলো, সেখানে দুটো বেডের অপরটিতে আরেকজন রোগী আছে। সম্ভবত গতকাল তার বেবি হয়েছে। নার্স আমাকে বলে গেলো, যখন পেইন সহ্য করতে পারবো না, তখন যেন বেডের উপরে সুইচ চাপ দিয়ে তাদের ডাকি।

ওদিকে আমার তখনো পেইনের কোন লক্ষণই নেই। মেয়েদের ওয়ার্ডে সন্ধ্যার পর পুরুষ বা কোন দর্শনার্থী থাকার অনুমতি নেই। তাই শাশুড়ি বাসায় চলে গেল আর জামাই হাসাপাতালের করিডরে গিয়ে বসে রইলো। কারন ওয়ার্ডে ওকে থাকতে না দিলেও ডেলিভারির সময় এখানে স্বামীদের থাকতে দেয়। শুরু হলো পেইনের জন্য প্রতীক্ষা।

স্পিরিচুয়াল প্রস্তুতিঃ

পবিত্র কুরআনে সুরাহ মারইয়ামে, মারইয়াম (আঃ) কে প্রসব বেদনার সময় নির্দেশ দেয়া হয়েছিল, খেজুর ও পানি খেতে। (আয়াত ২৪,২৫,২৬ দ্রষ্টব্য)। খেজুর প্রসব এর সময়কে সংক্ষিপ্ত করে। অর্থাৎ লম্বা সময় ধরে প্রসব বেদনা সহ্য করতে হয় না। প্রথম প্রেগ্নেন্সিতে যেটি অধিকাংশ মেয়েকেই সহ্য করতে হয়।

আমি শেষের দিকের বেশ কয়েক সপ্তাহ প্রতিদিন ৬ টা করে খেজুর খেতাম। এতে কখনো আমার ডায়াবেটিস বাড়েনি, সেই সাথে আমার হিমোগ্লোবিন বাড়াতে সাহায্য করেছিল। এবং আমার লেবার আসলেই সংক্ষিপ্ত করেছিল। আল্লাহ্‌ এর রহমতে লেবারের প্রগ্রেস এত দ্রুত ছিল যে, আমাকে ওরা এপিডুরাল দেবারো সময় পায় নি। হাসপাতালে বসে বসে লেবার রুমে যাবার আগ পর্যন্ত আমি একটু পর পর খেজুর আর জমজমের পানি খেয়েছি।

এছাড়া এই সময়ে চেষ্টা করা উচিৎ আল্লাহ্‌ এর থেকে বেশি বেশি মাফ চাওয়া, দুয়া করা আর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা। আল্লাহ্‌ সন্তান দিচ্ছেন এটা নিয়ে বেশি করে কৃতজ্ঞ হওয়া উচিৎ। জানি না কতটুকু করতে পেরেছি। মোবাইলে কুরআন তিলাওয়াত ডাউনলোড করে নিয়েছিলাম, পেইনের সময় শোনার জন্য। এছাড়াও মনে মনে ঠিক করে রেখেছিলাম কার কার জন্য দুয়া করবো।

লেবার পেইন শুরুঃ

সন্ধ্যা থেকে অল্প কিন্তু অনিয়মিত ব্যাথা আসছিল আর যাচ্ছিল। তেমন একটা কষ্ট হচ্ছিল না তখনো। রাত দেড়টা দুটোর দিকে পেইন বাড়তে শুরু হল এবং পেইনের সময় কাছাকাছি হয়ে আসছিল। সব সময় শুনতাম প্রসব বেদনা অত্যন্ত ভয়াবহ। কিন্তু এতটা যন্ত্রণাদায়ক হতে পারে তা ধারনার মাঝেও ছিল না।

একটু পর পর যখন পেইন আসতো, তখন পাগলের মত লাগতো। কখনো কুরআন শোনার চেষ্টা করতাম। কিন্তু বার বার বাথরুমে যেতে হচ্ছিল, তাই বাঁধা পড়ছিল। খেজুর আর পানি খাচ্ছিলাম। হাঁটলে একটু শান্তি পাচ্ছিলাম। প্রত্যেকবার ব্যাথা শুরু হলেই মনে হত, এই জিনিস সহ্য করা সম্ভব নয়। এত কষ্ট! এত কষ্ট!

জামাইকে ফোন করে ডাকলাম, বারান্দায় গিয়ে দেখা করলাম ওর সাথে। আমার কষ্ট দেখে ওরও কষ্ট হচ্ছিল, পাগলের মত বারান্দার এ মাথা ও মাথা করছিলাম আর বলছিলাম সিজার করে ফেল প্লিয, আমার পক্ষে এই পেইন নেয়া সম্ভব না। আমি আর পারবো না। ও বার বার সাহস দিচ্ছিলো, কিন্তু ওর কোন কথাই আমার কানে ঢুকছিল না।

রাত যখন প্রায় সাড়ে চারটার মত, ততক্ষণে সহ্যের শেষ সীমায় পৌঁছে গিয়েছি। মনে হচ্ছিল ব্যাথা এর চাইতে তীব্রতা ধারণ করতে পারে না। সুইচে চাপ দেবার সাথে সাথে ডাঃ আর নার্স রা ছুটে এল। এমনিতেও রাতে তারা কয়েকবার খোঁজ নিয়ে গিয়েছিল। আমাকে লেবার রুমে নিয়ে গেল, তার আগে ওষুধ দিয়ে বাওয়াল ক্লিয়ার করলো।

সন্তানের জন্মঃ

লেবার রুমে যাবার সাথে সাথে আমাকে তারা বেডে শুইয়ে দিল ও বাবুর হার্ট বিট মাপার যন্ত্র ফিট করে দিল। যার অর্থ বাবু হবার আগ পর্যন্ত আমি খাট থেকে নামতে পারবো না। ব্যাথার সময় শুয়ে থাকলে আরো বেশি কষ্ট হয়। প্রতিবার ব্যাথা আসার সাথে সাথে আমি যন্ত্রণায় চিৎকার করতে লাগলাম। আমার চিৎকারে হাসপাতালের আকাশ বাতাস ভারি হয়ে যাচ্ছিল। আমার স্বামীকে ডেকে আনা হল।

আমাকে স্যালাইনের মধ্য দিয়ে রিলাক্সেশনের একটা ঔষুধ দেয়া হল। যদিও এতে কোন কাজ হয়েছে না কি জানি না। মাঝে মাঝে মুখে একটা বিশেষ গ্যাস মাস্ক দিয়ে নিশ্বাস নিতে বলছিল। তাতে এক মুহূর্তের জন্য ব্যাথা একটু কমতো। সে জিনিসও বেশিক্ষণ ব্যাবহার করা হয় নি। আমাকে চেক করে বললো, ৫/৬ সেমি ওপেন হয়েছে। এক ঘণ্টায় এক সেমি ওপেন হয়। সেই হিসাবে আরো চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা লাগবে পুরো দশ সেমি খুলতে। এরপর ডাঃ আমার পানি ভেঙ্গে দিল। হঠাত করে মনে হল ঘন গরম পানি আমার ভেতর থেকে বের হয়ে গেল।

ওদিকে আরো ৪/৫ ঘণ্টা এই পেইন সহ্য করতে হবে শুনে, মনে হচ্ছিল পাগল হয়ে যাব। এ যে অসহ্য যন্ত্রনা! সহ্যের বাইরে চলে যাচ্ছিল কষ্ট। জবাই করা পশুর মত তড়পাচ্ছিলাম আমি। পানি খেতেও এলাউ করছিল না তারা। মাঝে মাঝে কয়েক ফোঁটা পানি দিচ্ছিল মুখে।

আমার জামাই শুধু দোয়া পড়ে পড়ে আমাকে ফুঁ দিচ্ছিল আর মাথার ঘাম মুছে দিচ্ছিল। এসি রুমেও দর দর করে ঘামছিলাম। নার্স বারবার বলছিল ইস্তেগফার করতে। রুমের দেয়ালে দেখলাম দোয়া ইউনুস লেখা। কিছুক্ষন পড়ার চেষ্টা করলাম। কিন্তু সত্যি কথা বলতে কি, কিছুতেই মনঃসংযোগ করতে পারছিলাম না। বড় বড় নিশ্বাস নিলে একটু আরাম পাচ্ছিলাম।

যখন লেবার রুমে ঢুকেছি তখন পোনে পাঁচটা। ডাঃ দের হিসেব মতে সকাল ন’টা দশটার আগে সারভিক্স পুরো ওপেন হবে না। কিন্তু তারা একটু পর পর চেক করে বলতে লাগলো, ৭ সেমি খুলেছে, আট সেমি খুলেছে! আলহামদুলিল্লাহ্‌। এত দ্রুত লেবার প্রগ্রেস হবার কারনে আমাকে তারা এপিডুরাল ও দিতে পারে নি। যদিও এপিডুরাল ব্যবহারের ইচ্ছা এমনিতেও ছিল না। এপিডুরাল ব্যবহার করলে একটিভ ভাবে নিজের লেবারে পারটিসিপেট করা যায় না। কোমরে অনেক সময় দীর্ঘদিন ব্যাথা থাকে।

প্রায় এক ঘণ্টার মাঝেই দশ সেমি ওপেন হয়ে গেল। এই সময়ের পেইন ছিল সবচেয়ে কষ্টের। এতক্ষণ পেইন আসা যাবার মাঝে অন্তত দু তিন মিনিট রেস্ট পাচ্ছিলাম। কিন্তু তখন মনে হয় তিরিশ সেকণ্ড পর পর পেইন আসছিল। সে সময় আসলে মাথায় সময়ের হিসেবও কাজ করছিল না।

এক পর্যায়ে ডাঃ, নার্স আর আমার জামাই উত্তেজিত হয়ে বলে উঠলো বাবুর মাথা দেখা যাচ্ছে। এবার পুশ করা শুরু করতে হবে। তারপর নিচে কেটে দেয়া হল। লেবার পেইনের ঠেলায় আমি অন্য কোন ব্যাথা টেরও পেলাম না। এরপর শুরু হল সবচেয়ে ভয়ংকর অধ্যায়। আমি যত পুশই করি না কেন, বেবি কিছুতেই বের হচ্ছিলো না। ডাঃ রা টেনশনে পড়ে গেল। এমন তো হবার কথা না।

একজন আমার ভেতরে হাত ঢুকিয়ে চাপ দিয়ে দিয়ে জায়গা বড় আর গভীর করতে লাগলো, যেন বাবু সহজে বের হতে পারে। (এই হাত দিয়ে জায়গা করার বিষয়টা পুরো লেবারের সবচেয়ে যন্ত্রণাদায়ক বিষয় ছিল)। আল্লাহ্‌ সহ্য করিয়েছেন দেখেই সহ্য করতে পেরেছি।

শেষে ডাঃ রা বললো বাবু যদি এখন না বের হয় তাহলে বাবুর ক্ষতি হতে পারে। বাবুর ভালোর জন্য আমাকে আরো জোরে পুশ করতে হবে। আমার পেটের উপর দিয়ে কয়েকজন চেপে বাচ্চাকে নিচে নামানোর চেষ্টা করতে লাগলো। নিচে হাত দিয়ে জায়গা করা হতে লাগলো। সে এক দুর্বিষহ অবস্থা।

প্রায় পনের বিশ মিনিট পুশ করার পর, দশই জিলহজ্জ ঈদের দিন ভোর ৬ টা ১৫ তে বাবু বের হয়ে আসলো। বাবু যখন বের হলো, মনে হচ্ছিল পিছলে কিছু একটা বের হয়ে গেল। সেই মুহূর্ত টা কোন ব্যথা টের পাই নি।

এক মুহুর্তের জন্য একটা মানবশিশু আমার বুকের ওপর ফেলেই ডাঃ রা তাকে নিয়ে ছুটে রুম থেকে বের হয়ে গেল। কারন বাচ্চা জন্মের সাথে সাথে কাঁদেনি।

এমনভাবে তার গলায় নাড়ী প্যাঁচানো ছিল যে, সে নিজ থেকে নিশ্বাস নিতে পারছিল না। তখনো আমি কিছুই জানি না, বাবুকে দেখতেও পারি নি বলতে গেলে। আর স্যালাইনের সাথে দেয়া মাসল রিলাক্সের অষুধের কারনে কেমন একটা ঘোরের মাঝে চলে যাচ্ছিলাম। আমার জামাইও কোথায় যেন অদৃশ্য হয়ে গেল।

তখন আমার পেটের মাসলে একটা ইঞ্জেকশন দেয়া হল, যেন আবার কন্ট্রাকশন শুরু হয় ও প্লাসেন্টা বেরিয়ে আসে। অল্প সময়েই প্লাসেন্টা বেরিয়ে আসলো। কেউ একজন হাত ঢুকিয়ে আমার ভেতরের রক্ত পরিষ্কার করে দিল। তারপর দীর্ঘ সময় ধরে প্রায় তিন স্তরে স্টিচ দিল ডাঃ।

বাচ্চা বার্থ ক্যানেলে আটকিয়ে ছিল, তাই বোধহয় নিচের কাটাটা বেশি গভীর করতে হয়েছিল। প্রচুর স্টিচ পড়লো। এর মাঝে আবারো একপলকের জন্য বাবুকে কেউ আমার কোলে দিয়েই আবার নিয়ে গেল।

এরপর আমাকে ওয়ার্ডে দিয়ে গেল। ওয়ার্ডে দেবার পর আমার জামাই ঈদের নামাজ পড়তে গেল। আর আমি ওষুধের প্রভাবে বা লেবারের ক্লান্তির কারনেই কি না জানি না, গভীর ঘুমে তলিয়ে গেলাম।

বাবুর অবস্থাঃ

পরে বাবুর বাবা’র কাছ থেকে থেকে শুনেছি এই ঘটনা গুলো। বাবু যখন নিশ্বাস নিতে পারছিল না, তখন চারদিকে ডাঃ দের দৌড়াদৌড়ি পড়ে যায়। তাকে পায়ে, পিঠে বাড়ি দিয়ে, অক্সিজেন দিয়ে নানা ভাবে তারা চেষ্টা চালাতে থাকে। বেশ কিছুক্ষণ পর বাবু একটু শব্দ করে ওঠে। তারও কিছুক্ষণ পর আল্লাহ্‌ এর অসীম রহমতে আমার বাবা টা কেঁদে ওঠে। এর ভেতরেই বাবুর কানে আযান দেয়া হয় ও খেজুর দিয়ে তাহনিক করা হয়।

আমার ঘুম ভাঙ্গার পর আমাকে এন এই সি ইউ তে নিয়ে যেয়ে বাবু দেখিয়ে আনা হল। আমার বাচ্চাটা অসহায়ের মত নাকে অক্সিজেনের নল, হাতে ক্যানোলা নিয়ে ছোট্ট একটা বিছানায় পরে ছিল। একদিন বাবুকে পর্যবেক্ষণে রেখে, আলহামদুলিল্লাহ্‌ ওর অক্সিজেন নেয়া আর অন্যান্য কিছু স্টেবল বোঝার পর আমাদের রিলিয করা হয়। ঈদের তিন দিনের দিন আমরা বাসায় ফিরে আসি।

আল্লাহ্‌ এর অশেষ রহমতে সেদিন সব ঠিকমত সম্পন্ন হয়েছিল। বাবু ঠিক ছিল, আমার লেবারে টাইমও প্রথমবার মা হতে যাওয়া অধকাংশ মহিলার চেয়ে কম ছিল।

নরমাল ডেলিভারির এই অভিজ্ঞতা পড়ে হয়তো অনেকের ভয় লাগতে পারে। কিন্তু বিশ্বাস করুন আল্লাহ্‌ বাবু হবার জন্য যে পথ নির্ধারণ করে দিয়েছেন, মা ও শিশুর জন্য সেটিই উত্তম। যদি কোন জটিলতা না থাকে, তাহলে ইচ্ছাকৃত ভাবে সিযার করানো বোকামি। এতে সাময়িক কিছুটা কষ্ট মুক্তি ঘটে। তবে সিজার পরবর্তী রিকভারি স্টেজ অনেক কষ্টকর।

বাচ্চা হবার পর শরীর এমনিতেই নাজুক হয়ে থাকে। এই নাজুক শরীরে সেলাই এর ব্যাথা চেপে আরেকজন ছোট্ট মানুষের দেখভাল করা কঠিন হয়ে যায়। সিযারের এনেস্থিসিয়া দেয়ার জায়গায় অর্থাৎ কোমরে অনেকের বছরের পর বছর ব্যাথা হয়। এছাড়া একবার সিযার হলে, তাদের পরবর্তী সন্তানের সময়েও দেখা যায় সিযারই করা হয়।

অপর দিকে স্বাভাবিক প্রসবের পর একজন মা তুলনামূলক দ্রুততার সাথে নরমাল জীবনে ফিরে আসে আলহামদুলিল্লাহ। আর প্রসব বেদনাকে যারা ভয় পান তাদের বলছি, আল্লাহ্ নিশ্চয় এর বিনিময়ে প্রচুর গুনাহ মাফ করে দেবেন। এবং এই কষ্টের সাথেই রয়েছে স্বস্তি।

আল্লাহ্‌ যেন সকল মায়ের ত্যাগ স্বীকার কবুল করেন এবং কষ্টের বিনিময়ে উত্তম প্রতিদান দান করেন। আমিন।

লেখাটি কি আপনার উপকারে এসেছে?
হ্যানা