baby inside womb ষোলতম সপ্তাহ

আপনি আনন্দিত হবেন জেনে যে গর্ভধারণের ষোলতম সপ্তাহ শেষে আপনি গর্ভধারণের চার মাস পূর্ণ করবেন ইনশাল্লাহ। তবে ডাক্তাররা গর্ভধারণের সময়কে সপ্তাহ দিয়ে বুঝিয়ে থাকেন। আপনার বাচ্চা এখন দ্রুত বড় হচ্ছে এবং গত কয়েক সপ্তাহে আপনার সম্ভবত ২ থেকে ৪ কেজি ওজন বেড়েছে। তবে এই হিসাবটা শুধুই আপনার জন্য একটা দিকনির্দেশনা, এর উনিশ-বিশ হতেই পারে।  

আপনার শারীরিক পরিবর্তন

ইংরেজিতে প্রেগন্যান্সি গ্লো কথাটা নিশ্চয়ই আপনি শুনেছেন। এখন হয়ত আপনি সেটা নিজের মাঝে দেখতে পাচ্ছেন। আপনি হয়ত লক্ষ্য করে থাকবেন আপনার ত্বক আগের চেয়ে উজ্জ্বল ও চুল আগের চেয়ে মোটা ও চকচকে লাগছে। গর্ভধারণের এই সুন্দর দিকটা উপভোগ করুন!

এই সপ্তাহে আপনার ডাক্তার ভিজিট থাকলে আপনি হয়ত প্রথমবারের মতো বাবুর হৃদস্পন্দন শুনতে পাবেন! ডাক্তার যদি আপনার আগের ভিজিটে রক্ত পরীক্ষা দেন তাহলে এই সময় তার ফলাফল থেকে আপনার রক্তের গ্রউপ ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপাদান যেমন আয়রনের মাত্রা ইত্যাদি জেনে নিতে পারেন। প্রস্রাব পরীক্ষার মাধ্যমে ডাক্তার দেখবেন আপনার জেস্টেশন্যাল ডায়বেটিস ও প্রিএকলাম্পশিয়া হওয়ার লক্ষণ আছে কিনা। এই সপ্তাহে আপনার দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টারের আল্ট্রাসাউন্ড করানোর সময়ও হয়েছে যা ডাক্তারের সাথে দেখা করার আগে করে নিয়ে যেতে পারেন। 

এখন আসুন এই সপ্তাহের আরও কিছু লক্ষন নিয়ে জেনে নেই:   

পিঠব্যথা 

আপনার পেট বড় হওয়ার সাথে সাথে কোমরের নিচের দিককে এই ভার বহন করার জন্য আগের চেয়ে বেশি বাঁকা হতে হচ্ছে যার ফলে সেখানের পেশীগুলোতে চাপ পড়বে। সেই সাথে, গর্ভাবস্থার হরমোনের কারণেও এমন ব্যথা হয়ে থাকে। এ থেকে আরাম পেতে হালকা কিছু ব্যয়াম করতে পারেন। সোজা ভঙ্গিতে উঠবস করতে পারেন এবং আমাদের গর্ভকালীন ব্যয়াম নিয়ে লেখায় দেখানো পিঠের জন্য আরামদায়ক ব্যয়াম করতে পারেন। গর্ভকালীন ম্যাসাজ আপনাকে স্বস্তি দিতে পারে অনেকটা। এ জন্য আপনার স্বামীর থেকেও সহযোগিতা নিতে পারেন। উষ্ণ পানিতে গোসল করেও আরাম পাওয়া যায়। 

স্তনের বৃদ্ধি এবং সাদা স্রাবের পরিমাণ বেড়ে যাওয়া 

আপনার স্তনের আকার ইতিমধ্যেই অনেকটা বৃদ্ধি হয়েছে এবং দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টার শেষে তা বুকের দুধ খাওয়ানোর জন্য সম্পূর্ণ তৈরি হয়ে যাবে। নিজের জন্য আরামদায়ক অন্তর্বাস বেছে নিন এই সময়।  

সেই সাথে, বেশি পরিমাণে সাদা স্রাবের নিঃসরণ আপনার জন্য অস্বস্তিকর লাগতে পারে। তবে মনে রাখবেন, এটা আসলে আপনার জন্য উপকারী। এটা প্রসব নালীকে সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা দেয়। তবে যদি তা দুর্গন্ধযুক্ত হয় বা আপনার ভ্যাজাইনাতে চুলকানির সমস্যা দেখা দেয় তাহলে আপনার চিকিৎসককে জানান। 

কোষ্ঠকাঠিন্য 

প্রজেস্টেরন হরমোন আপনার অন্ত্রনালীসহ সারা শরীরের পেশীকেই শিথিল করে তুলেছে। এর ফলে হজম প্রক্রিয়া ধীর হয়ে যায় এবং পেটের বিভিন্ন সমস্যা দেখা যায়। অর্ধেকের মতো গর্ভবতী নারী গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগেন। এ সমস্যা থেকে আরাম পেতে আঁশযুক্ত খাবার বেছে নিন যেমন লাল আটার রুটি, ফল, সবজি, বিচিজাতীয় খাবার, ডাল ইত্যাদি। নিয়মিত ব্যয়াম করুন। প্রচুর পরিমাণে পানি খান।   

ভুলে যাওয়া

এ সময় অনেক গর্ভবতী মায়েরই ভুলে যাওয়া রোগ হতে দেখা যায়। তবে  এর পেছনের কারণ নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। 

চোখ শুষ্ক, স্পর্শকাতর হওয়া

এর পেছনেও হরমোনকেই দায়ী করা হয়। তবে যে কোন চোখের ড্রপ ব্যবহারের আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিন।  

মাড়ী থেকে রক্ত পরা 

হরমোনজনিত কারণে এমনটা হয়ে থাকে। এই নিয়ে পনেরতম সপ্তাহে আরও আলোচনা পাবেন।  

বাচ্চার বৃদ্ধি

আপনার বাচ্চার দৈর্ঘ্য এখন প্রায় ৪.৫৭ ইঞ্চি এবং ওজন এখন প্রায় ৩.৫৩ আউন্স। মানে আপনার বাবু এখন একটি এভোকাডো ফলের সমান। 

আপনার বাবু এখন হাত মুঠ করতে পারে এবং আঙ্গুল চুষতেও পারে। যে নবজাতক বাবুরা আঙ্গুল চোষে তাদের এই অভ্যাস হয়ত এখন থেকেই শুরু হয়ে যায়। 

আপনার বাচ্চার সার্কুলেটরি সিস্টেম কাজ করতে শুরু করেছে। আপনার বাবু হয়ত এখন নানারকম মুখভঙ্গি করতে পারছে কিন্তু তার হাসি বা ভ্রু কোঁচকানো সবই আকস্মিক কারন এখনো পেশীর ওপর তার কোন নিয়ন্ত্রন তৈরি হয়নি। 

তার নার্ভাস সিস্টেমের গঠন চলছে এবং এখন সে হাত-পা নাড়া শুরু করতে পারবে। এই সপ্তাহ থেকে আপনি হয়ত পেটের ভেতর তার লাথি, ঘুষি অনুভব করতে পারবেন! পেটের ভেতর হঠাত যদি প্রজাপতি উড়ছে বলে মনে হয় তাহলে চমকে উঠবেন না যেন! 

আপনার বাবু এখন চোখ বন্ধ অবস্থাতেই চোখের মণি এদিক থেকে ওদিক নাড়াতে পারে এবং আপনার পেটের বাইরের আলো কিছুটা অনুভব করতে পারে। 

আপনার বাবুর চেহারা এখন অনেকটাই মানুষের মতো যদিও সে এখনো খুব বেশি হাড়সর্বস্ব কারণ এখনো চামড়ার নিচে ফ্যাট তৈরি হয়নি। তার চামড়া এখনো কিছুটা স্বচ্ছ ধরণের, মানে আপনি যদি এখন তাকে দেখতে পারতেন তাহলে চামড়ার নিচে তার রক্তনালীগুলো দেখতে পেতেন। 

তার হাড়গুলো কার্টিলেজের মতো নরম ছিল এবং এখন তা ধীরে ধীরে আরও শক্ত ও মজবুত হয়ে চলেছে। তার মেরুদণ্ড ও পিঠের ছোট পেশীগুলো আরও শক্তিশালী হচ্ছে, তাই সে এখন তার মাথা ও ঘাড় আগের চেয়ে বেশি সোজা করতে পারে। তবে আপনার বাবুর হাড় শেষ পর্যন্ত কিছুটা নমনীয় থাকবে যেন জন্মের সময় সে সহজেই আপনার প্রসব নালী দিয়ে বের হতে পারে। 

তার আম্বিলিক্যাল কর্ড বা নাড়ী পুরোপুরি তৈরি হয়ে গেছে এবং এটা হোয়ার্টন জেলী দিয়ে সুরক্ষিত আছে। হোয়ার্টন জেলী হচ্ছে জেলীর মত ঘন একটি তরল যা নাড়ীকে পিচ্ছিল করে রাখে যেন আপনার বাবু এতে পেঁচিয়ে না গিয়ে স্বাচ্ছন্দ্যে নড়াচড়া করতে পারে।    

আপনার বাবুর কানের হাড়গুলো এখন স্বস্থানে এসেছে তাই আপনি কথা বললে সম্ভবত এখন সে শুনতে পাবে। গবেষণায় পাওয়া গেছে যেসব বাচ্চারা গর্ভে থাকতে কোন নির্দিষ্ট ধ্বনি শোনে তারা জন্ম নেয়ার পর সেই একই ধ্বনি শুনে চিনতে পারে। তাই গুরুত্বের সাথে বাছাই করুন তাকে আপনি কী শোনাবেন। আপনি যদি সন্তানকে কুরআনের হাফিয বানাতে চান তাহলে এখন থেকেই তাকে তিলাওয়াত শোনাতে পারেন।  

আপনার বাবু যদি মেয়ে হয় তাহলে এই সপ্তাহে হাজার হাজার ডিম তার ডিম্বাশয়ে গঠিত হচ্ছে, যা থেকে আপনার ভবিষ্যৎ নাতি-নাতনিরা আসবে ইনশাল্লাহ!! 

আপনার জন্য টিপস

সঠিক গর্ভকালীন খাদ্যাভ্যাস মেনে চলুন, আপনার খাদ্যতালিকায় জাংক ফুডের পরিমাণ একদম কমিয়ে এনে পুষ্টিসম্মত খাবারের পরিমাণ বেশি রাখুন এবং নিয়মিত ব্যয়াম করুন। সালাদ খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। দীর্ঘমেয়াদে আপনিই লাভবান হবেন। 

আপনার পরিবর্তিত স্বাস্থ্যের সাথে মানানসই কাপড় কিনে নিন। এতে আপনাকে দেখতে যেমন ভালো লাগবে, মনও প্রফুল্ল হবে।  

ঘরে বা বাইরে ধূমপানকারীদের এড়িয়ে চলুন। সিগারেটের ধোয়া আপনার বাচ্চার বেড়ে ওঠাকে ঝুঁকির মুখে ফেলতে পারে। 

ভালো সময় কাটাতে আমাদের প্রকাশিত প্রসব অভিজ্ঞতাগুলো সময় বের করে পড়তে থাকুন। গর্ভকালীন সময়কে উপভোগ করুন! 

তথ্যসূত্রঃ

১। What to expect.
২। Start 4 life
৩। the BUMP
৪। Parents

লেখাটি রিভিউ করেছেন –

ডাঃ ফাতেমা ইয়াসমিন
এফসিপিএস(অবস্টেট্রিক্স ও গাইনোকোলজি)
কনসালট্যান্ট, শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতাল।

ছবি কৃতজ্ঞতা: Mother and baby, Vekteezy