ট্যাগ: মাতৃত্বের প্রতিসপ্তাহ

গর্ভধারণের সতেরতম সপ্তাহ

গর্ভধারণের সতেরতম সপ্তাহে আপনি এখন পূর্ণ চার মাসের গর্ভবতী এবং গর্ভধারণের পঞ্চম মাসে পড়েছেন! এখন যেহেতু গর্ভধারণের প্রায় অর্ধেকটা পথ আপনি পাড়ি দিয়ে ফেলেছেন, আপনাকে প্রেগন্যান্সি সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া শুরু করতে হবে।

বিস্তারিত

গর্ভধারণের ষোলতম সপ্তাহ

আপনি আনন্দিত হবেন জেনে যে গর্ভধারণের ষোলতম সপ্তাহ শেষে আপনি পাঁচ মাসের গর্ভবতী হবেন ইনশাল্লাহ। তবে ডাক্তাররা গর্ভধারণের সময়কে সপ্তাহ দিয়ে বুঝিয়ে থাকেন। আপনার বাচ্চা এখন দ্রুত বড় হচ্ছে এবং গত কয়েক সপ্তাহে আপনার সম্ভবত ২ থেকে ৪ কেজি ওজন বেড়েছে।

বিস্তারিত

গর্ভধারনের তেরতম সপ্তাহ

গর্ভধারণের প্রায় এক তৃতীয়াংশ সময় পার করে এসে এই সপ্তাহে ক্লান্তির মাত্রা বাড়তে পারে। এছাড়া মুড সুইং নিয়ে বিব্রত থাকেন বেশিরভাগ মায়েরা। যদি এটি প্রথম গর্ভধারণ না হয়, তবে বর্তমান ছোট বাচ্চার দেখাশোনাও মা’কে ক্লান্ত রাখে।

বিস্তারিত

গর্ভধারনের ১২ তম সপ্তাহ

গর্ভধারণের ১২তম সপ্তাহে এসে শারিরীক মানসিক পরিবর্তন যেমন দ্রুত হয়, তেমনি হরমোনগত অনেক পরিবর্তন স্থিমিত হয়ে অাসে। এসময় স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিন, পর্যাপ্ত পানি খান, অার হালকা ব্যায়াম করুন। গর্ভধারনের খুটিনাটি জানতে পড়াশুনা করুন।

বিস্তারিত

গর্ভধারনের ১১তম সপ্তাহ

১১তম সপ্তাহে এসে পায়ে গিট লাগা, ক্লান্তি, গ্যাস হওয়া, মুড সুয়িং, চামড়ায় কালচে দাগের মতো বেশ কিছু উপসর্গ দেখা যায়। এসময় গর্ভবতী মা নিজেকে অারামদায়ক পরিবেশে রাখা জরুরী। ঢিলেঢালা কাপড় পরিধান, প্রচুর পানি খাওয়া, গ্যাস উদ্রেক করা খাবার এড়িয়ে চলা, বিশ্রাম, অানন্দদায়ক পরিবেশ এসব বিষয় মেনে চললে মা ও সন্তান দুজনেই ভাল থাকবে।

বিস্তারিত

গর্ভধারনের দশম সপ্তাহ

দশম সপ্তাহ-এ মায়ের শরীরে দ্রুত পরিবর্তন আসবে। একই সাথে বড় হচ্ছে বাচ্চাও। এসময় আঁশযুক্ত ফল ও শাকসবজি খান বেশি করে। শরীরের প্রতি যত্নবান হন আর হালকা ব্যায়াম করুন।

বিস্তারিত

গর্ভধারনের নবম সপ্তাহ

নবম সপ্তাহে এসে মা এবং বাচ্চার পরিবর্তনগুলো খুব দ্রুত হতে থাকে। এখনো মা’কে বাইরে থেকে দেখতে প্রেগন্যান্ট মনে না হলেও শরীরের ও মনের পরিবর্তনগুলো লক্ষ্যনীয়। ওজন উল্লেখযোগ্য না বাড়লেও কাপড় আঁটসাঁট মনে হতে পারে, বিশেষত কোমরের কাছে।

বিস্তারিত

গর্ভধারণের সপ্তম সপ্তাহ

সপ্তম সপ্তাহে বাচ্চা একটা শিমের বিচির আকার ধারণ করে। এসময় প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহনের চেষ্টা করুন, কারণ এর প্রভাব ভ্রুণের উপর পড়বে। মানসিকভাবে ইতিবাচক থাকুন আর নিজের যত্ন নিন।

বিস্তারিত
Loading

লগিন করুন সহজেই!

মাতৃত্ব ফেসবুক গ্রুপ

আপনর প্রশ্ন, পরামর্শ বা কোন চিন্তা সমমনা অন্যান্য মা, বা হবু মা'র সাথে ভাগাভাগি করে নিতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিন। গ্রুপটি শুধুমাত্র মহিলাদের জন্য।

মাতৃত্ব ফেসবুক গ্রুপ

আমাদের পার্টনার

bhalo-achi-logoআপনার ডাক্তারি জিজ্ঞাসার জবাব ডাক্তারদের কাছ থেকে পেতে প্রশ্ন করুন ভালো আছি ডট কম-এ।
প্রশ্ন ও উত্তর সংক্রান্ত সকল দায়ভার শুধুমাত্র ভালো আছি ডট কম বহন করবে।